দ্য পিপল ডেস্কঃ  ডোপিংয়ের মতো ঘটনা লোকানোর জন্য আগামী ৪ বছর সমস্ত ইভেন্ট থেকে নির্বাসিত করা হল রাশিয়াকে।

ডোপিংয়ের দায়ে নির্বাসিত রাশিয়া

তার মধ্যে রয়েছে ২০২০ টোকিও অলিম্পিক ও ২০২২ কাতারের ফুটবল বিশ্বকাপ ও বেজিং উইন্টার অলিম্পিক।

সোমবার এমনটাই জানায় বিশ্ব ডোপিং সংস্থা বা ওয়াডা

পাশাপাশি ওয়াডার তরফে জানানো হয় যে, ২০১৮ সালে পিয়ংচাং অলিম্পিকের মতো আগামী চার বছর দেশের পতাকা ও জাতীয় সঙ্গীত ছাড়া খেলতে হবে।   

আরও পড়ুন : তুর্কিতে পাড়ি দিচ্ছে ভারতীয় দল

মস্কো ডোপিং নিয়ে মিথ্যে তথ্য পেশ করা ও পসিটিভ ডোপিং টেস্টের আসল ফাইল ডিলিট করার অপরাধের শাস্তি হিসেবে ওয়াডার তরফে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 ওয়াডার তরফে মস্কোর ল্যাবটারির পেশ করা রিপোর্ট রিভিউ জন্য কমিটির কাছে পাঠানো হবে।   

 এর আগেও ২০১৫ সালে এক খেলোয়াড় ডোপিংয়ে ধরা পড়ায় প্রকাশ্যে আসে রুসাডা ডোপিং স্ক্যান্ডাল ।

সেই সময় বাতিল করে দেওয়া হয়েছিল রাশিয়ার অ্যান্টি ডোপিং এজেন্ট তথা রুসাডাকে ।

ডোপিংয়ের দায়ে নির্বাসিত রাশিয়া, একই ঘটনার পুণরাবৃত্তি

ঠিক তার পরের বছরই সোচিতে অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিক্সে ডোপিংয়ের মারাত্মক অভিযোগ উঠেছিল রাশিয়ার বিরুদ্ধে ।

আন্তর্জাতিক খেলাধুলোর জগৎ থেকে নির্বাসিত করা হয়েছিল রাশিয়াকে ।

পরে শর্তসাপেক্ষে রাশিয়াকে ফিরিয়ে আনা হলেও তাদের বিরুদ্ধে নতুন করে অভিযোগ ওঠে। 

আরও পড়ুন : বিশ্বের দ্রুততম মহিলা হিসাবে বাংলাদেশের বাংলা চ্যানেল অতিক্রম করলেন তহরিনা

ডোপ বিরোধী প্রক্রিয়া নিয়ে রাশিয়া ওয়াডার হাতে যে সব তথ্য তুলে দিয়েছিল, তাতে একাধিক অসঙ্গতির অভিযোগ উঠেছিল।

গত মাসেই ল্যাবটারির রিপোর্ট ও টেকনিকাল সমস্যা নিয়ে গোলযোগের অভিযোগ উঠেছিল রাশিয়া ক্রীড়ামন্ত্রী পাবেল কোলোভোবের বিরুদ্ধে ।

তবে রুশ অ্যাথলিটরা একটি মাত্র শর্তেই অলিম্পিক্সে খেলতে পারবেন। তাঁদের প্রমাণ করতে হবে যে রাশিয়ার সঙ্গে তাঁরা কোনও ভাবেই জড়িত নন।

লুসানের বৈঠকে রাশিয়ার উপর নির্বাসনের খাঁড়া নেমে আসায় দেশের গৌরবময় ক্রীড়াঐতিহ্যের গায়ে কালি লেগে গেল । যা মুছতে যথেষ্ট বেগ পেতে হবে রাশিয়াকে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here