দ্যা পিপল টিভি ডিজিটাল ডেস্কঃ কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক মোদীর। প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে কী কী নিয়ে আলোচনার সম্ভাবনা রয়েছে?

উদ্বেগ বাড়িয়ে প্রতিদিনই লাগামছাড়া ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে দেশের করোনা সংক্রমণ হার। মাত্র দশ দিনের মধ্যে দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় দুই লাখের কাছাকাছি। পাশাপাশি, চিন্তা বাড়াচ্ছে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন। তাই এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতেই আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে বসতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ এই বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

Source: Internet

দেশের একাধিক রাজ্যে উর্ধ্বমুখী করোনা সংক্রমণের গ্ৰাফ। ইতিমধ্যেই দেশের ২৭টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে অতি সংক্রামক ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টও। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যগুলি কোভিড মোকাবিলায় কতটা প্রস্তুত ও সংক্রমণ সামাল দিতে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, এদিন তা খতিয়ে দেখবেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। সেই কারণেই প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদেরই এই বৈঠকে অবশ্যই উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। সূত্রের খবর, এই বৈঠকে অন্তত ৫ জন মুখ্যমন্ত্রীকে তাদের রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে কথা বলার সুযোগ দেওয়া হবে।

Source: Internet

রবিবারই দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের পর্যালোচনা বৈঠকেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কোভিড টাস্ক ফোর্সকে জানিয়েছিলেন, দেশের এই উদ্বেগজনক করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে স্পষ্টভাবে জানতে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেই বৈঠক করতে চান তিনি। কোন রাজ্যে কোভিড পরিস্থিতি কী রকম, রাজ্যের তরফে কী স্বাস্থ্য পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে, – এই সম্বন্ধে তথ্য চান প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু এই মুহূর্তে অতি দ্রুত তৎপরতার হারে টিকাকরণেই জোর দিতে চাইছেন প্রধানমন্ত্রী। এই বৈঠকে যাতে দেশে ‘মিশন মোডে’ টিকাকরণ চলে, তার উপরেই জোর দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লক্ষ ৪৭ হাজার ৪১৭ জন। যা আগের দিনের থেকে প্রায় ২৭ শতাংশ বেশি। এই লাফ অত্যন্ত উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠেছে চিকিৎসক মহলের। দেশের পটিজিভিটি রেটও এই মুহূর্তে বেড়ে হয়েছে ১৩.১১ শতাংশ। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজার ৪৮৮ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ হাজার ১৬২ জন।

এই মুহূর্তে ভয় ধরাচ্ছে দেশে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্ট অনুযায়ী, বর্তমানে দেশে করোনায় চিকিৎসাধীন রোগী ১১ লক্ষ ১৭ হাজার ৫৩১ জন। যা আগের দিনের থেকে প্রায় ১ লক্ষ ৬২ হাজার বেশি। চিকিৎসক মহলের দাবি, এই মুহূর্তে সংক্রমণে রাশ না টানলে তৃতীয় ঢেউয়ের জেরে ভেঙ্গে পড়বে দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা।