দ্য পিপল ডেস্কঃ শক্ত হাতে করোনা পরিস্থিতির সামাল দিয়েছেন কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা। ২৩ জুন জনসেবা দিবসে কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে সেই কাজের সম্মান দিল রাষ্ট্রসঙ্ঘ।

দেশে প্রথম করোনা জোরাল থাবা বসায় কেরলে। কিন্তু কেরলেই আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার অন্যান্য রাজ্য়ের তুলনায় প্রায় নগণ্য।

কেরালা সরকারের তৎপরতায় ওই রাজ্যে একমাসের মধ্যেই নিয়ন্ত্রণে চলে আসে করোনা। যা দেশ তথা সারা বিশ্বের কাছে নজির।

কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজার প্রশংসায় ধন্য ধন্য পড়েছে। সেই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ রাষ্ট্রসঙ্ঘের আন্তর্জাতিক স্তরের আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখার ডাক পান কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা।

সেখানে করোনা মোকাবিলায় কেরলের মডেলকেই তুলে ধরেন তিনি। করোনা মোকাবিলায় তাঁর বিশেষ ভূমিকার জন্য বিশ্ব জনসেবা দিবসে তাঁকে পুরষ্কৃতও করছে রাষ্ট্রসঙ্ঘ।

রাষ্ট্রসঙ্ঘের এই সম্মান পাওয়ার পর শৈলজার প্রশংসায় মুখর হয়েছে নেট দুনিয়া। ইতিমধ্যেই তাঁর উপাধী হয়েছে ‘কেরলের গর্ব’।

জানা গিয়েছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-র নামের তালিকায় একমাত্র ভারতীয় হিসেবে ওই ওয়েবমিনারে অংশ নেন কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

হু-র তরফে জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিশ্বব‍্যাপী স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত ব‍্যক্তিরা প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে একটানা কাজ করে চলেছেন। তাঁদের সম্মান জানাতে প্রত্যেক বছর ২৩ জুন জনসেবা দিবস উপলক্ষে ইউএন পাবলিক সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়।

এবার করোনা লড়াইয়ে অসামান্য কাজের জন্য সেই সম্মান পেলেন কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা।

এছাড়াও ওই ভার্চুয়াল আলোচনা সভার মূল বক্তা হিসেবে ছিলেন রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, হু-এর মহাসচিব টেড্রোস অ্যাধনাম ঘেব্রেইসাস প্রমুখ ১০ জন বিশিষ্ট।

https://twitter.com/shailajateacher/status/1275682271874494470