দ্য পিপল ডেস্কঃ টানা ৯ দিন আত্মগোপন থাকার পর অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়লেন ত্রিপুরার প্রাক্তন পুর মন্ত্রী বাদল চৌধুরী।

আগরতলার ফ্লাইওভার নির্মাণকে ঘিরে প্রাক্তন পুর মন্ত্রী বাদল চৌধুরীর বিরুদ্ধে ৬০০ কোটি টাকা আর্থিক কেলেঙ্কারিতে পশ্চিম আগরতলা থানায় অভিযোগ করা হয় । ২০০৮ সালে পুরমন্ত্রী থাকাকালীন ত্রিপুরার রাস্তা, সেতু নির্মাণে আর্থিক দুর্নীতি করেছেন বলে অভিযোগ।

ঘটনায় ১৩ অক্টোবর পশ্চিম ত্রিপুরা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। প্রাক্তন মন্ত্রী সহ অভিযোগের তালিকায় ছিলেন প্রাক্তন ইঞ্জিনিয়র সুনীল ভৌমিক এবং মুখ্যসচীব ওয়াই পি সিং।

আরও পড়ুনঃ বাদল ইস্যুতেই ত্রিপুরায় ঘুরে দাঁড়াতে পারে সিপিএম

তারপর থেকেই প্রাক্তন মন্ত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়াতে শুরু করে পুলিশ। অভিযুক্ত বাদল চৌধুরী যাতে না রাজ্যের বাইরে যেতে পারেন তাঁর জন্য বিমানবন্দর এবং রেল স্টেশনগুলিতে বাড়তি নিরাপত্তা জারি করা হয়।

এমনকি প্রাক্তন মন্ত্রীকে গ্রেফতারের জন্য ত্রিপুরা সিপিআই(এম) এর রাজ্য কমিটির কার্যালয়ে হানা দেয় পুলিশ। রাজ্যের একাধিক জায়গায় তল্লাশি চালিয়েও তাঁকে ধরতে সক্ষম হয়নি পুলিশ কর্তারা।

অবশেষে সোমবার রাতে অসুস্থ অবস্থায় আগরতলার একটি বেসরকারি হাসপাতালে আসার পথে ছদ্মবেশে থাকা প্রাক্তন মন্ত্রীকে চিহ্নিত করতে সক্ষম হয় পুলিশ। বর্তমানে ওই বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন প্রাক্তন মন্ত্রী।

এদিন জেলা পুলিশ সুপার ডঃ কুলদীপ সিং জানান, ডাক্তারের পরামর্শে প্রাক্তন মন্ত্রী বাদল চৌধুরীর চিকিৎসা পরিষেবা চালু রয়েছে। এই মুহূর্তে তিনি শারীরিক ভাবে সুস্থ বলে জানিয়েছেন ওই পুলিশ কর্তা। পাশাপাশি তিনি জানান, হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হলেই প্রাক্তন মন্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যাওয়া হবে।

এদিন প্রাক্তন মন্ত্রীর শারীরিক পরিস্থিতি জানতে হাসপাতালে উপস্থিত হন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মাণিক সরকার সহ একাধিক বাম নেতারা। যদিও এদিন বাদল চৌধুরীর শারীরিক অবস্থার কথা জানতে চাওয়ায় তা এড়িয়ে যান প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here