দ্য পিপল ডেস্কঃ : এবছর ত্রিপুরা রাজ্যে দুর্গাপূজা হচ্ছে মোট ২,৪৫৯টি। গতবছর ত্রিপুরা রাজ্যে মোট পুজো হয়েছিল ২,৫২৭টি।

এর মধ্যে রাজ্যের শহর এলাকা গুলিতে হচ্ছে ৮৬৯টি এবং গ্রামীণ এলাকায় পুজো হচ্ছে মোট ১,৫৯০টি। আগরতলা পুরনিগম এলাকায় দুর্গাপুজো হচ্ছে মোট ৫০৩টি।

শুক্রবার ত্রিপুরা পুলিশের প্রধান কার্যালয় এক সংবাদ সম্মেলন ডেকে একথা জানান ত্রিপুরা পুলিশের মহানির্দেশক(ডি জি) একে শুক্লা।

তিনি আরও জানান দূর্গোৎসবের দিনগুলিকে অবাধ ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার জন্য অন্যান্য বছরের ন্যায় এ বছরও ত্রিপুরা পুলিশ বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। উৎসবের দিনগুলি নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করার জন্য ত্রিপুরা পুলিশের তরফে যেমন সার্বজনীন উৎসব গুলিতে বিশেষ নিরাপত্তার আয়োজন করা হয়েছে একই ভাবে বাড়ির পুজো গুলিতেও নিরাপত্তার জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উৎসবের দিনগুলিতে নিরাপত্তার জন্য মোট ৯ হাজার ২৫০জন নিরাপত্তাকর্মী নিযুক্ত করা হয়েছে।

এরমধ্যে ত্রিপুরাতে স্টেট রাইফেলস জওয়ান মোট ৫,১৫০ জন এবং ত্রিপুরা পুলিশ মোট ৪,১০০ জনকে রাজ্য জুড়ে মোতায়েন করা হবে।

উৎসবের এই কদিনের জন্য রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় মোট ২০৮টি অস্থায়ী পুলিশ বুথ স্থাপন করা হবে। শুধুমাত্র আগরতলা শহরে বপন করা হবে ৫২টি।

বিশেষভাবে নজরদারি চালানোর জন্য রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় ৮৯ টি ওয়াচ টাওয়ার স্থাপন করা হয়েছে। এরমধ্যে ২৯ টি ওয়াচ টাওয়ার শুধুমাত্র আগরতলা শহরে নির্মাণ করা হয়েছে।

পুলিশের যে সকল গাড়ি রয়েছে তার পাশাপাশি এই কদিনের জন্য বাড়তি আরো ১৭০টি গাড়ি ভাড়া নেওয়া হয়েছে।

রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের তরফে ১১৯টি সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে।

এর পাশাপাশি আগরতলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যেসকল সিসি ক্যামেরা রয়েছে সেগুলিও কাজ করবে।

১০০০ জন পুলিশকর্মীকে রিজার্ভে রাখা হয়েছে। যেকোনো জরুরী প্রয়োজনে তৎক্ষণাৎ তাদেরকে কাজে নামানো হবে।

পুলিশ ও টি এস আর বাহিনীর পাশাপাশি সিআরপিএফ এবং সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে নিরাপত্তার কাজে লাগানো হবে।

সপ্তমী থেকে নবমী পর্যন্ত প্রতিদিন স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ছয়টা থেকে মধ্য রাত একটা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় যান চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে।

সেইসঙ্গে পুলিশের মহানির্দেশক রাজ্যবাসীর প্রতি আহ্বান রাখেন উৎসবের দিনগুলিতে যেন কোন ধরনের গুজব রটানো না হয়। কারো কাছে যদি কোন খবর থাকে তৎক্ষণাৎ তারা যেন নিকটবর্তী পুলিশ স্টেশনে বিষয়টি অবগত করান এবং বিষয়টি যাচাই করে সত্য প্রমাণিত হলে মানুষকে অবগত করেন।

সবশেষে তিনি রাজ্যবাসীর কাছে আহবান ড্রাগের যে উৎসবের দিনগুলি অবাধ সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার জন্য সকলে যেন ঐকান্তিক চেষ্টা চালান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here