দ্য পিপল ডেস্কঃ  স্বাস্থ্যকর্মী ও ফ্রন্টলাইন যোদ্ধাদের পর এবার ভোট কর্মীদেরও করোনা টিকা দেবে সরকার। এই নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রকের নির্দেশ, নির্বাচন শুরুর আগেই টিকাকরণের কাজ শেষ করতে হবে। করোনার সংক্রমণ থেকে যাতে সার্বিক সুরক্ষা পাওয়া যায় তা নিশ্চিত করতেই এই বিশেষ উদ্যোগ কমিশনের।

জানা গিয়েছে, এ রাজ্যে পুলিস ও প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকদের সঙ্গে ইতিমধ্যেই বৈঠক সেরে ফেলেছেন মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক আরিজ আফতাব। বাদ যায়নি কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিও। কারণ, ভোটের আগে বাংলায় পুলিস আধিকারিকদের বদলি, বুথের পরিকাঠামো ও নির্বাচনী ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে, এইরকম কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির মধ্যে সমন্বয়ের মতো বিষয়ে কমিশন যথেষ্ট উদ্বিগ্ন।

কমিশন সূত্রে খবর, কোভিডের কারণে এবার রাজ্যে বুথের সংখ্যা ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত নির্বাচনের সময় একতলায় ছিল, এমন ২৯৫০টি বুথকে নিচের তলায় নামিয়ে আনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এদিকে আবার দেশজুড়ে করোনা টিকাকরণ কর্মসূচিও চলছে জোরকদমে। চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তাহলে ভোটকর্মীরাই বা বাদ যাবেন না কেন! তাঁদের অবিলম্বে টিকা দেওয়ার জন্য রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরকে নির্দেশ নিল নির্বাচন কমিশন।

স্বাস্থ্য অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী জানিয়েছেন, আয়কর দপ্তরের যেসব কর্মী পোলিং অফিসার হিসেবে কাজ করেন, তাঁদের টিকার দেওয়ার শুরু হয়ে গিয়েছে। কমিশনের তরফে যদি বাকি পোলিং অফিসারদের নাম দেওয়া হয়, তাহলে তাঁদের নাম পোর্টালে নথিভুক্ত করে টিকা দেওয়া হবে।