দ্য পিপল ডেস্ক : সুন্দরবনের নামখানা ব্লকের মৌসুনি দ্বীপে হাজার পরিবারের হাতে ত্রাণ তুলে দিল নরেন্দ্রপুর রামকৃষ্ণ মিশন।


বুধবার দুপুরে মৌসুনি বাজারের বাগডাঙ্গা হাইস্কুলে এই ত্রাণকার্য অনুষ্ঠান চলে।


সোশ্যাল ডিসটেন্স বজায় রেখে, মুখে মাস্ক পড়ে, একে একে মহারাজের হাত দিয়ে সাধারণ মানুষজন ত্রাণ নেন।


সুপার সাইক্লোন আমফান বিধ্বস্ত এই মৌসুনি দ্বীপ আজ জরাজীর্ণ। সাহায্য পেয়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন এখানকার দরিদ্র মানুষজন।


এই ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, শিবভাবা নন্দজি মহারাজ, মহাদেব মাইতি, ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানার পুলিশ আধিকারিক, স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান, সমাজসেবক বিদ্যুৎ দিন্ডা, বাগডাঙ্গা হাইস্কুলের শিক্ষক, সমীর বরণ জানা, সুনির্মল গিরি সহ প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ।


মহাদেব মাইতি জানান, মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং মানুষের সেবা করাই প্রধান কাজ। এটি রামকৃষ্ণ মিশনের আদর্শে রয়েছে। এটা পূজা নয় সেবা। আমরা সার্ভে করে ১০০০ পরিবারের হাতে ত্রাণ দিলাম।

এর আগে ৮০০ পরিবারের হাতে ত্রাণ দিয়েছিলাম। আমাদের যতটুকু সামর্থ্য আমরা দিয়েছি। স্বামীজি ভাবেন মানুষের সেবা করা দরকার। তাই এর মধ্যে আমাদের আর কোনও উদ্দেশ্য নেই। মানুষের কাজে লাগুক এটাই চাই।

ত্রাণ পেয়ে খুশি হয়ে নির্মল হাজরা বলেন, এই মিশন থেকে আমরা এই ত্রাণ পেয়ে খুব খুশি। দিন আনি দিন খাই। তাই এই লকডাউন বাজারে কোথাও কাজ করার জায়গা নেই। তাই এই খাবারই আমাদের কাছে একটা বড় পাওনা।


অন্যদিকে কুসুম তলার বাসিন্দা প্রদীপ মণ্ডল জানান, খুব ছোটবেলায় আমি আমার বাবাকে হারিয়েছি। তাই অর্থের অভাবে বেশি দূর পড়াশোনা করতে পারিনি। এই লকডাউনের ফলে বেঁচে থাকা খুব মুশকিল হয়ে পড়েছে।

কোনও কোনও সময় খাবারও তেমন জুটত না। আজ এই মিশন থেকে যে ত্রাণ আমরা পেয়েছি আমাদের কিছুদিন পেট ভরিয়ে রাখবে।