দ্য পিপল ডেস্কঃ লাখ টাকায় বিকোচ্ছে টেট এর প্রশ্নপত্র। প্রশ্নপত্র বিক্রি এবং টাকার বিনিময়ে শিক্ষকের চাকরী দেওয়ার অভিযোগে নাম জড়িয়েছে শিক্ষামন্ত্রী এবং শিক্ষা দফতরের অধিকর্তাদের। যা ঘিরে তুমুল চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে গোটা ত্রিপুরা জুড়ে।

কমলপুরে প্রশ্নপত্র বিক্রির অভিযোগে এক ব্যাক্তিকে মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে টেট পরিক্ষার্থী। অবিলম্বে শিক্ষামন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবীতে সরব হয়েছে বিরোধী পক্ষ। অভিযুক্তদের অবিলম্বে শনিবার সন্ধ্যায় আগরতলায় বিক্ষোভ মিছিল করে ৪ টি বামপন্থী ছাত্র যুব সংগঠন।

শনিবার রাতে পশ্চিম জেলাশাসকের অফিসের সামনে বিক্ষোভ দেখায় এনএসইউআই।

যদিও প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন টিআরবিটির চেয়ারম্যান অনুপ কুমার দত্ত। তিনি বলেন, কড়া পাহাড়ায় সুরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে প্রশ্নপত্র। তাই প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না বলে জানিয়েছেন তিনি। পুরো ঘটনাটি ষড়যন্ত্রমূলক গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথ।

২০ অক্টোবর ত্রপুরা জুড়ে টেট-১ এবং ২৬ তারিখ রয়েছে টেট-২ এর পরীক্ষা। গোটা ত্রিপুরা থেকে আবেদনকারীর সংখ্যা ১,৩৪,৭৬৮ জন। প্রতি ফর্মের জন্য এসসি-এসটিদের ২০০ টাকা এবং জেনারেলদের ৩০০ টাকা করে দিতে হয়েছে। যার ফলে ইতিমধ্যেই গোটা রাজ্য থেকে কোষাগারে জমা হয়েছে কোটি টাকা।

ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি অডিও ক্লিপকে ঘিরে আলোচনা তৈরি হয়েছে। সেখানে পরীক্ষার পর চাকরীর জন্য ২ থেকে ৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এমনকি ঘটনার পিছনে শিক্ষা মন্ত্রী রতনলাল নাথের হাত রয়েছে দাবী করা হচ্ছে। এমনকি কমলপুরের বেশকিছুজন টাকা দিয়েছে বলে দাবী করছেন পরিক্ষার্থীরা। যদিও তাঁদের নাম এখনও জানা যায়নি।

এ বিধয়ে ত্রিপুরার প্রদেশ কংগ্রেস নেতা সুবল ভৌমিকের সঙ্গে কথা বলে দ্য পিপল টিভি। তিনি বলেন, প্রশ্ন ফাঁস হওয়া সত্ত্বেও আজ পরীক্ষা হল কিভাবে? অবিলম্বে পরীক্ষা বাতিল করার দাবী তোলেন তিনি। সেইসঙ্গে হাইকোর্টের তত্ত্বাবধানে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবী তোলেন তিনি।

এবিষয়ে ত্রিপুরার সিপি(আই)এম নেতা পবিত্র করের সঙ্গে যোগাযোগ করে দ্য পিপল টিভি। তিনি বলেন, কমলপুরে পরিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথোপকথনে উঠে আসে অডিও ক্লিপ এর তথ্য। যেখানে পরিক্ষায় ৭০ প্রশ্নের জন্য ২ লক্ষ টাকা এবং চাকরির পর ৩ লক্ষ টাকা দাবি করা হয়। পরে ওই তথ্য যাচাই করে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঘটনায় অভিযোগ উঠেছে শিক্ষামন্ত্রীর বিরুদ্ধে। কারণ কমলপুরের প্রথম সারীর বিজেপি নেতা রতনলাল নাথ। তাই সন্দেহ আরও জরালো হচ্ছে ।পাশপাশি ঘটনার পুর্নাঙ্গ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here