দিল্লির দূষণ 01

দ্য পিপল ডেস্কঃ দিল্লির দূষণ -এর জন্য এবার পাঞ্জাব সরকারকে একহাত নিল সুপ্রিম কোর্ট।

প্রতিনিয়ত কৃষকদের মাত্রারিক্ত ফসল পোড়ানোর জন্য পাঞ্জাবের সরকারকে দুষল দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

পাশপাশি আইন অমান্য করলে সকলকে শাস্তি পেতে হবে সাফ জানিয়ে দেন বিচারপতি অরুণ মিশ্র।

এদিন শুনানি চলাকালীন আদালতে উপস্থিত ছিলেন হরিয়ানা, পাঞ্জাব এবং দিল্লির শীর্ষ আধিকারিকরা।

এবার সময় এসেছে প্রশাসনিক আধিকারিকদের শাস্তি দেওয়ার। সাফ জানিয়ে দেন বিচারপতি।

আরও পড়ুন : দূষণে দুষ্ট দিল্লি, ইন্দ্রদেবকে ডাকতে বলছেন মন্ত্রী

এদিন পাঞ্জাব সরকারের পক্ষে আদালতে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যসচিব। মুখ্যসচিবকে কটাক্ষ করে বিচারপতি জানান, একজন মুখ্যসচিব হয়ে কিভাবে আপনি এই বিষয়টি এড়িয়ে যেতে পারেন?

মানুষ মারা যাচ্ছে। দূষণের মাত্রা ১৮০০ ছাড়িয়েছে। ঘুরপথে চলছে বিমান । মাত্রাতিরিক্ত দূষণের জন্য আপনাদের গর্ব করা উচিত।

এদিন দিল্লির দূষণ নিয়ে মামলা চলাকালীন পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (ইপিসিএ)কে কটাক্ষ করে বলেন বিচারপতি অরুণ মিশ্র এবং বিচারপতি দীপক গুপ্ত।

দিল্লির দূষণ চিন্তা বাড়িয়েছে

পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার কৃষকদের ফসল পোড়ানোর কারণে শুধুমাত্র দিল্লিতেই নয়, গোটা উত্তর ভারতে দূষণের মাত্রা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। এমনটাই জানিয়েছে আদালত।

ভূবিজ্ঞানীদের তথ্য অনুযায়ী, বুধবার পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার পার‍্য ৭০০০ টি জায়গায় ফসলে পোড়ানোর ছবি ধরা পড়েছে।

সরকারের নাকের ডগায় এই কাজ প্রতিনিয়ত হয়ে চলেছে বলে দাবী করে তাঁরা। তবে ফসল পোড়ানোর কোনও নিয়ম নেই সাফ জানিয়ে দিয়েছে আদালত।

এদিন সকালেই দিল্লির দূষণ নিয়ে আইনি উপদেষ্টা কেকে ভেনুগোপালের বৈঠক করেন দিল্লি, পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার তিন মুখ্যসচিব।

বৈঠকে জানানো হয় শুধুমাত্র দিল্লি নয়, উত্তর ভারতের ৪৪ শতাংশ দূষণ ছড়ায় মাত্রাতিরিক্ত ফসল পড়ানোর কারণে।

দুই লক্ষের অধিক কৃষকদের ফসল পোড়ানো থেকে রোখা সম্ভব নয়।

তিন রাজ্যের পক্ষে থেকে এই প্রশ্ন ওঠার পর আদালত সাফ জানিয়ে দেয় এভাবে চলতে থাকলে আগামী দিনে দূষণ গোটা দেশকে গ্রাস করে নেবে।

আরও পড়ুন : ঘূর্নিঝড় মহা , দিল্লির দূষণের পর ভারতের নয়া চ্যালেঞ্জ

ফসল পোড়ানো ছাড়া কৃষকদের নতুন অত্যাধুনিক মেশিন কেনার ক্ষমতা নেই জানান পাঞ্জাবের মুখ্যসচিব।

পাল্টা মুখ্যসচিবের কাছে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে বিচারপতি জানান, তাঁদের ক্ষমতা নেই। তা বলে আপনারও ক্ষমতা নেই? তাহলে আপনি মুখ্যসচিবের পদে রয়েছেন কেন?  

শুধুমাত্র দিল্লি নয়, দূষণের চাদরে মুড়ে গিয়েছে কানপুর, মুজ্জাফরপুর, গয়া, বেনারস সহ উত্তর ভারতের একাধিক শহর।

দূষণ নিয়ে চিন্তিত দেশের মানুষ। সরকারের তরফে দেওয়া মাস্ক। দূষণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন বিদ্বজনেরা। এই ঘোর কাটবে কবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here