যে ভুল বিজেপি করেছে, সেই ভুল করেছিল তৃণমূলও!

0
98

নয়ন রায়

অমিত শাহের সভা ঘিরে ধুন্ধুমার কলকাতায়। ধর্মতলায় শুরু হওয়া পদযাত্রা পৌঁছনোর কথা ছিল সিমলা স্ট্রিটে, বিবেকানন্দের পৈত্রিক ভিটেয় গিয়ে। তার আগেই অবশ্য থামিয়ে দেয় পুলিশ। বিবেকানন্দকে শ্রদ্ধা না জানিয়েই ফিরতে হয় অমিতকে।

তবে তার আগে বিদ্যাসাগর কলেজের সামনে থাকা বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে দিয়েছে কেউ বা কারা। তৃণমূলের অভিযোগ, মূর্তি ভেঙেছে বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব।

এই ধুন্ধুমার কাণ্ডের সময় তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন বেহালার একটি জনসভায়। মূর্তি ভাঙার খবর পেয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তিনি। তিনি বলেন, ঈশ্বরচন্দ্রের মূর্তি ভেঙে দিয়েছে। এটা নকশাল আমলেও ঘটেনি। এত বড় লজ্জা!আমরা ছেড়ে দেব না।

মমতার অভিযোগ, বিজেপির কিছু গুন্ডা হাতে ডান্ডা নিয়ে বিদ্যাসাগর কলেজে আগুন লাগিয়েছে। ঈশ্বরচন্দ্রের মূর্তি ভেঙে দিয়েছে। বিজেপির কাজে তিনি যে লজ্জিত, তাও জানিয়ে দেন মমতা। বলেন, বিজেপির কাজে আমরা লজ্জিত। যারা বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙে, তাদের কোনও ক্ষমা নেই। এর পরেই তাঁর হুঙ্কার, বাংলার হেরিটেজের গায়ে হাত দিলে আমার থেকে ভয়ঙ্কর কেউ নয়।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা যে ভুল করল, সেই একই ভুল করেছিল তৃণমূলও। রাজ্যে বাম জমানার অবসান ঘটিয়ে ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল। তার আগে আগেই উন্মত্ত জনতা ভেঙে দিয়েছিল ধর্মতলা চত্বরে থাকা লেনিনের মূর্তি। ভাঙচুর চালিয়েছিল ঐতিহ্যমণ্ডিত বিধানসভা ভবনেও। কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যকেও বামপন্থী ঠাওরেছিল তৃণমূল। সেই কারণে ভাঙচুর করা হয়েছিল কিশোর কবির আবক্ষ মূর্তিও।

অতএব, রাজ্যে মূর্তি ভাঙচুরের নজির ছিল আগেও।নকশাল আমলেও ভাঙ্গা হয়েছিল মুর্তি। তবে কংগ্রেসি রাজের অবসান ঘটিয়ে সাতাত্তরে যখন ক্ষমতায় আসে বামফ্রন্ট, তার পরেও অটুট ছিল প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিধানচন্দ্র রায় সহ একাধিক মনীষীর মূর্তি।

পার্কস্ট্রিটের মোড়ে ঠায় দাঁড়িয়ে রয়েছেন কংগ্রেসের জওহরলাল নেহরু। বিড়লা প্ল্যানেটোরিয়ামের সামনেও অটুট ইন্দিরা গান্ধির ব্রোঞ্জের মূর্তি।

মনীষীদের শ্রদ্ধা জানানোর রেওয়াজ বাঙালির অস্থি-মজ্জায়। যাঁরা কোনও না কোনও ভাবে দেশ কিংবা পৃথিবীকে সমৃদ্ধ করেছেন, তাঁদের বিগ্রহ গড়ে কেবল মনের মন্দিরে পুজো করেনি বাঙালি, ঠাঁই দিয়েছে শহরের প্রাণকেন্দ্রে।

সেই কারণেই এই শহরে রয়েছে শেক্সপিয়ার, রবীন্দ্রনাথ, বঙ্কিমচন্দ্র, বিদ্যাসাগর, মার্কস, এঙ্গেলস, লেনিন, ইন্দিরা গান্ধি, মাতঙ্গিনী হাজরার মূর্তি। এঁদের পাশাপাশি শোভা পাচ্ছে আর্যভট্ট, আইজাক নিউটনের মতো বিজ্ঞানীর মূর্তিও। সেই মূর্তি ভেঙে একদিন যে সংস্কৃতির সূচনা করেছিল তৃণমূল, তারই বাহক হয়ে রইল বিজেপি।

এ লজ্জার সংস্কৃতি কবে বন্ধ হবে!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here