কোটিপতি তৃণমূল নেত্রী ! জানুন কীভাবে

0
233

দ্য পিপল ডেস্ক: নিজের নামে বিপুল পরিমানে জমি কেনার অভিযোগ উঠল জেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় সংসদের চেয়ারপার্সন কল্যানী পোদ্দার ও তাঁর স্বামী তথা মাথাভাঙ্গা পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান চন্দন দাসের বিরুদ্ধে।

মাথাভাঙা ও শিলিগুড়ির মাটিগাড়া এলাকায় গত ছয় থেকে সাত বছরে ১৬ টি জমি কিনেছেন। মোট জমিগুলির বর্তমান বাজারদর প্রায় ১০ কোটি টাকা।

গত ৪ জুন মাথাভাঙ্গা মহকুমাশাসকের মাধ্যমে তাঁদের নামে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগের চিঠি পাঠান সেখানকার নাগরিক মঞ্চ। সেই চিঠিতে তাঁরা উল্লেখ করেছে ১৬ টি জমির নাম সহ তার বাজারদর।

কল্যানী পোদ্দারের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ গুঞ্জন শুরু হয়েছে জেলা তৃনমূলের অন্দরেই। যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কল্যাণী দেবী।

তাঁর কথায়, তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন। তার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করেছে বিরোধী দল। বিরোধীরা তাঁকে লোকের চোখে খারাপ করার জন্য এই কাজ করেছে। কল্যাণীদেবী ও তাঁর স্বামীর দাবি তাঁদের কাছে দুটি জমি বাড়ি ছাড়া আর কিছুই নেই।

২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল সরকার। তার পর থেকেই কোচবিহার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাংসদের চেয়ারপার্সন হন তিনি। এর আগেও একাধিকবার বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে বিভিন্ন কারনে। টাকা নিয়ে স্কুলে চাকরির ব্যবস্থা করে দেওয়া, একাধিক বার শিক্ষক-শিক্ষিকা ট্রান্সফার নিয়েও অভিযোগ উঠেছে।

ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তৃণমূল আসার আগে অতি সাধারণ একজন শিক্ষিকা ছিলেন কল্যানীদেবী। হটাৎ করে এতো সম্পত্তি কেনার অর্থ কোথা থেকে এলো তাঁর কাছে?

গত ছয়-সাত বছরে কল্যানীদেবী ও তাঁর স্বামী চন্দন বাবুর কেনা জমির হিসেবে

  • তাঁরা ৯ নং ওয়ার্ডের পচাগড় এলাকার কমলা রায়ের জমি কিনেছেন ,যার বর্তমান বাজারদর প্রায় ৩২ লক্ষ টাকা।
  • মাথাভাঙ্গার ৬ নং ওয়ার্ডের অমলাপাড়া এলাকার শ্যামলবরণ রায়ের জমি কিনেছেন যার বর্তমান বাজারদর ৭৫ লক্ষ টাকা।
  • নগর মৌজা এলাকার ধীমান সাহার জমি কিনেছেন, যার বর্তমান বাজারদর  ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা।
  • মাথাভাঙ্গার ৬ নং ওয়ার্ডের অমলাপাড়ার যমুন ঘোষের জমি কিনেছেন, যার বর্তমান বাজারদর ৫৫ লক্ষ টাকা।
  • অমলাপাড়ার প্রণতি বর্মনের জমি কেনার কথা চিঠিতে উল্লেখ আছে যার বর্তমান বাজারদর ৭২ লক্ষ টাকা।
  • আমলাপাড়ার প্রদীপ বসাকের জমি কেনার জথা উল্লেখ করা হয়েছে যার বর্তমান বাজারদর ১ কোটি ৫ লক্ষ।

কোচবিহারের পাশাপাশি শিলিগুড়িতেও জায়গা কেনেন বলে জানা গেছে।

  • শিলিগুড়ির মিলনপল্লির বাসিন্দা পিন্টু পাসোয়ানের জমি কেনেন, যার বর্তমান বাজারদর ৬০ লক্ষ টাকা।
  • শিলিগুড়ির বাসিন্দা গোপাল কুন্ডুর জমি কেনেন যার বর্তমান বাজারদর ৬৫ লক্ষ টাকা। এছাড়াও আরও বেশ কিছু জমি কেনার নামে অভিযোগ রয়েছে ।

মাথাভাঙার মহকুমা শাসক শ্রুভ্রজ্যোতি ঘোষ জানান তাঁর কাছে কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি। অভিযোগ জমা পড়লে তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here