১৯ এর ভোট ভাবাচ্ছে ২১ কেঃ রায়গঞ্জ

0
66

দ্য় পিপল ডেস্কঃ দাড়িভিট কান্ডের স্মৃতি আজও টাটকা উত্তরদিনাজপুরের মানুষের মনে। দুই ছাত্রের মৃত্যু, পরবর্তীকালে সিবিআই তদন্তের দাবি এবং কানাইলাল আগরওয়াল ও গোলাম রব্বানির অন্তর্দ্বন্দ এবং অমল আচার্যের রাজনৈতিক দূরদর্শিতার কারণেই এই লোকসভা কেন্দ্র থেকে সরে যেতে হল তৃণমূলকে।

দাড়িভিট কান্ডের পর পরিবহন মন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা খোদ শুভেন্দুর বক্তব্যেই মানুষ আশাহত। ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়ন সত্যিই কী মানুষের কাছে পৌঁছালো তা নিয়ে উঠছে অনেক প্রশ্ন। যদি উন্নয়ন পৌঁছাত তাহলে এই পরাজয় কেন?  

প্রশ্ন এখান থেকেই উঠছে, তাহলে কী গদ্দারের সংখ্যা অনেক বেশী?  এই গদ্দাররাই হয়ত বিজেপিতে ভোট দিয়েছে। বাম কংগ্রেস এবং শাসকদলের পুরো ভোটটাই হয়ত দেবশ্রীকে জয়ের পথ মসৃণ করে দিয়েছে। আসলে নীচুতলার চূড়ান্ত অসন্তোষ, চোরাস্রোতের আগুন- যা সামলাতে অক্ষম হয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। উন্নয়নের নামে তোলাবাজি, গরুপাচারের মত ব্যবসায় সরাসরি যুক্ত হওয়ায় শাসকদলের ভাবমূর্তিকে অনেকটাই ভাবিয়ে তুলেছে।

প্রশ্ন উঠছে জুনিয়র লিডারদের সঙ্গে সিনিয়র লিডারদের সম্পর্ক মজবুত করার  ক্ষেত্রেও শুভেন্দুর  ব্যর্থতা নিয়েও।। তাই সার্কিট হাউসের মধ্যেই রাজনীতির মায়াজাল তৈরী করার মূল অভিযোগ উঠেছে শুভেন্দু অধিকারীর দিকে। বিজেপির জয়ের পর বহু নেতা কর্মী একনায়ক তন্ত্রের রাজনীতির বলি হতে হল উত্তর দিনাজপুরকে। এই রাজনৈতিক পরাজয়ের ইতিহাস লেখা থাকবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিক্সনারিতে। তাই ১৯ এর ভোট ভাবাচ্ছে ২১কে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here