||শুভজিত চক্রবর্তী||

দলীয় নেতাদের কাটমানি ফেরানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সে নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি। এবার রেশন কার্ড করতে গিয়েও দালালি দিতে হচ্ছে বলেও কার্যত স্বীকার করে নিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

ডেবরায় প্রশাসনিক বৈঠকে তৃণমূল সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের উদ্দেশ্যে দালালি বন্ধের হুঁশিয়ারি দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কার্ড করতে কাউকে টাকা দিতে হবে না বলেই স্পষ্ট জানিয়ে দেন মমতা।

এ মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত চলবে প্রথম দফার ডিজিটাল রেশন কার্ড সংশোধন ও নতুন কার্ড তৈরির কাজ।দ্বিতীয় দফার কাজ শুরু হবে ৫ তারিখে।এই কার্ড করাতেই মোটা অঙ্কের টাকা দালালি দিতে হচ্ছে বলে উপভোক্তাদের অভিযোগ।

এই দালালি যারা নিচ্ছে, তাদের সিংহভাগই রাজ্যের শাসক দলের কর্মী বলে অভিযোগ। রেশন কার্ড তৈরি ও সংশোধনের মধ্যেও যে দালাল রাজ ঢুকে গিয়েছে, তা স্বীকার করে নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই জন্যই ডেবরার প্রশাসনিক বৈঠকে এ ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান।

সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার নাম করে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের এক শ্রেণির নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে। ওই কাটমানি ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন খোদ তৃণমূল নেত্রী। তার পর রাজ্য জুড়ে হইচই হয় বিস্তর। টাকা ফেরতের দাবিতে নানা জায়গায় আন্দোলনও করেন বিরোধীরা।কয়েকটি জায়গায় টাকাও ফেরত দেন তৃণমূল নেতারা।

এনআরসি লাগু করতে মরিয়া বিজেপি। ক্ষমতায় এলে এনআরসি চালু করতে বদ্ধ পরিকর তারা। রাজ্য সরকার ধরেই নিয়েছে, আজ হোক, কাল হোক এনআরসি হচ্ছেই। এনআরসি হলে লাগবে রেশন কার্ড সহ অন্যান্য পরিচয়পত্র। এই রেশন কার্ড সংশোধন এবং নতুন কার্ড তৈরিরই হিড়িক পড়েছে।

এই হিড়িকেই বাড়তি দু পয়সা কামিয়ে নিচ্ছে নিষ্কর্মার দল। সরকারি ফর্ম বিনে পয়সায় বিলি করার কথা। হচ্ছেও। যদিও ফর্ম কিনে মোটা টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ। ফর্ম ফিলাপের জন্যও নেওয়া হচ্ছে ৩০-৪০-৫০টাকা।

শুধু তাই নয়, নতুন কার্ড তৈরি করতে গুণতে হচ্ছে পাঁচ-ছ হাজার টাকা।কার্ড সংশোধন করতেও দিতে হচ্ছে টাকা। এসবই বন্ধ করতে উদ্যোগী হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

কারণ, টাকা দিয়ে কার্ড করাতে গিয়ে জনগণের বিষনজরে পড়ছেন শাসক দলের নেতাকর্মীরা। কার্ড ইস্যুকে কেন্দ্র করে জনগণ যাতে ফের তৃণমূলের ওপর রুষ্ট না হন, সেজন্যই তৃণমূল নেত্রী দুর্নীতিটা বিনাশ করতে চান অঙ্কুরেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here