দ্য পিপল ডেস্ক : বিশ্বজুড়ে করোনার প্রতিষেধক আবিষ্কার করার জন্য দিন-রাত গবেষণা চলছে।


অন্যদিকে যোগগুরু রামদেব বাবা একটি ওষুধ তৈরি করেছেন। রামদেবের দাবি, এটি খেলে মিলবে করোনা থেকে মুক্তি।

করোনা প্রতিরোধ করতে পতঞ্জলির ওষুধ বাজারে এসেছে। চলতি সপ্তাহেই এই ওষুধটি বাজারে আসে।


যোগগুরু রামদেব বলেছিলেন, পতঞ্জলির করোনিল খেলে ১০০ শতাংশ করোনা সারবে। অন্যদিকে করোনিলকে নিষিদ্ধ করেছে রাজস্থান ও মহারাষ্ট্র।


এই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জয়পুরের এনআইএমএস-এ করোনা রোগীর উপর পতঞ্জলির এই ওষুধ প্রয়োগ করা হয়।

এরপরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নোটিশ পাঠিয়েছে রাজস্থানের স্বাস্থ্য দফতর।


পতঞ্জলির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ওষুধ বানানো থেকে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত পুরো বিষয়টি হয়েছে নিয়ম মেনে।


অশ্বগন্ধা, গিলয় ও তুলসী দিয়ে তৈরি এই ওষুধ পরীক্ষা করার সময় দেখা গিয়েছে করোনা প্রতিরোধ করতে সক্ষম।


সরকারি নিয়ম মেনেই ওষুধ তৈরি ও বিক্রি করা হচ্ছে। ওষুধটি কোনও ব্যক্তিগত স্বার্থ, বিশ্বাসের ওপর তৈরি হয়নি।


উত্তরাখণ্ডের স্টেট মেডিসিনাল লাইসেন্সিং অথরিটির পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, দিব্য ফার্মেসি করোনার ওষুধ বানানোর লাইসেন্সের আবেদন করেনি।


তেমন কোনও ড্রাগ লাইসেন্সও তাদের দেওয়া হয়নি। শুধুমাত্র জ্বরের ওষুধ ও ইম্যুনিটি বুস্টার কিট বানানোর লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে।


বিষয়টি আয়ূষ মন্ত্রকের নজরে এসেছে। নির্দেশ অমান্য করায় দিব্য ফার্মেসির বিরুদ্ধে নোটিস জারি হবে।


সন্তোষজনক উত্তর না পেলে তাদের সমস্ত বর্তমান লাইসেন্স বাতিল করা হবে।


আয়ূষ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে ওষুধটির নাম, কম্পোজিশন, গবেষণার স্থান জানতে চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ওষুধের সবরকম প্রটোকল ও স্যাম্পেল পাঠাতে বলা হয়েছে।