দ্য পিপল ডেস্কঃ বিজয়াতেই বিষাদ মুর্শিদাবাদের আজিমগঞ্জে। অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আট বছরের ছেলে সহ খুন শিক্ষক।

মৃত শিক্ষকের নাম বন্ধুপ্রকাশ পাল(৩৫), তাঁর স্ত্রী বিউটি পাল(৩০) ও তাঁদের একমাত্র ছেলে বছর আটের বন্ধুঅঙ্গন পাল।

জানা যায়, প্রতিবেশীরাই প্রথম এই ঘটনার কথা জানতে পারেন। উত্সবের দিন কারো দেখা পাওয়া যাচ্ছে না বলে পাশের বাড়ির কেউ ডাকতে গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় খাটে পড়ে আছে শিক্ষকের দেহ।

মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখা যায় তাঁদের ছেলেকে। ওই প্রতিবেশী চিত্কার করে আশেপাশের লোকজন এসে শিক্ষকের স্ত্রীর রক্তমাখা দেহ দেখতে পায় পাশের ঘরে।

খবর দেওয়া হয় পুলিশে। পুলিশ এসে তিনটি দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। বাড়ি থেকে মিলেছে একটি ধারাল অস্ত্র। ওই অস্ত্র দিয়েই খুন করা হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে। 

এই নৃশংস খুনের কারণ এখনও জানা যায়নি। তবে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, পরিবার বা শিক্ষকের উপর রাগ বা পুরনো কোনো শত্রুতার জন্যই খুন করা হতে পারে।

ডাকাতি করার জন্য যে তিনজনকে খুন করা হয়নি তা নিয়ে পুলিশ একপ্রকার নিশ্চিত। কারণ, ঘরে কোনো আলমারি ভাঙা বা কোনো আসবাব এলোমেলো অবস্থায় পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক বন্ধুপ্রকাশ ও তাঁর স্ত্রী খুবই ভালো মানুষ। আশেপাশের লোকের সঙ্গেও শিক্ষক পরিবারের ভালো সম্পর্ক ছিল বলেই জানা গেছে।

ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তিনটি খুনের পিছনে পরিচিতরাই আছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। খুনিরা পরিচিত বলেই হয়ত আট বছরের শিশুকেই ছাড় দেওয়া হয়নি। মৃত শিক্ষক ও তাঁর স্ত্রীর ফোনের কললিস্ট খতিয়ে দেখছে পুলিশ।      

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here