দ্য পিপল ডেস্কঃ ২৭ শে জুলাই ত্রিপুরা জুড়ে ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচন। লোকসভা নির্বাচনের মত পঞ্চায়েত নির্বাচনকে প্রহসনে পরিণত করার চেষ্টা করছে বিজেপি, এমনটাই অভিযোগ তুললেন ত্রিপুরা রাজ্য বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিজন ধর। এর জন্য মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবকেই দায়ী করেছেন তিনি।

আমাদের WHATSAPP গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন: Whatsapp

রবিবার এক সংবাদ সম্মেলন করেন বিজন ধর। নির্বাচনকে প্রহসনে পরিনত করার ঘটনার জন্য তিনি বামফ্রন্টের তরফে তিনি বিজেপি সরকারের কাজ কর্মের তীব্র নিন্দা জানান।

এক দিকে বিপ্লব কুমার দেব মুখ্যমন্ত্রী। আবার তিনি দলের সভাপতিও। রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনে সমস্যা হতে পারে এই আশঙ্কা থেকে বামফ্রন্টের তরফে মুখ্যমন্ত্রী সঙ্গে একাধীকবার দেখা করতে চাইলেও মুখ্যমন্ত্রী সময় দেননি বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

মুখ্যমন্ত্রী বামফ্রন্টের প্রতিনিধিদেরকে তাদের বক্তব্য লিখিত ভাবে দেওয়ার জন্য বলে ছিলেন, তারা এর তীব্র বিরোধীতা করেছেন বলেও জানান। নির্বাচনকে প্রহসনে পরিনত করার প্রতিবাদ জানিয়ে আগামী ১৮জুলাই আগরতলায় গন অবস্থায় কর্মসূচী পালন করবে বামফ্রন্ট বলেও জানান বিজন ধর।

অভিযোগ, রাজ্যে এমন একটি ব্লক নেই যেখানে বিরোধী প্রার্থীদের মনোনয়পত্র  জমা করতে বাধা দেওয়া হয়নি। এমন কি পশ্চিম জেলার অন্তর্গত ডুকলী ব্লকে বামফ্রন্ট প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিতে গেলে বিডিও-র সামনে থেকে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতিরা মনোনয়নপত্র টেনে নিয়ে ছিড়ে ফেলে। এই বিষয়ে বামফ্রন্ট প্রার্থীরা বি ডি ও-ক কাছে আইনী পদক্ষেপ গ্রহনের দাবী জানালে বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তারা।

একই সঙ্গে অভিযোগ, যে সকল বিরোধী প্রার্থীর তীব্র বাধা উপেক্ষা করে  মনোনয়পত্র জমা করেছেন তাদেরকে নানা ভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের চেষ্টা চালায়। যতই বাধাবিপত্তি আক্রমন চালানো হোক না কেন, বামফ্রন্ট মানুষের গনতান্ত্রিক অধিকার রক্ষার লড়াইয়ের জন্য নির্বাচনী লড়াইয়ের ময়দানে থাকবে বলেও এদিন জানিয়ে দেন তিনি। রাজ্যের নগর সংস্থাগুলির উপনির্বাচনে বিরোধীরা ৯৬শতাংশ আসনে প্রার্থী দিতে পারেনি আর এখনের পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিরোধীরা ৮৬শতাংশ আসনে প্রার্থী দিতে পারেনি বলে অভিযোগ করেন। 

বি জে পি সরকার ত্রিপুরা রাজ্যে আসার পর একটি নির্বাচনও অবাদ ও শান্তিপূর্ণ হয়নি বলে অভিযোগ করেন। এদিন প্রেসমিটে সিপিআই(এম) ত্রিপুরা রাজ্য কমিটির সম্পাদক গৌতম দাসসহ শরিক দল গুলির নেতৃত্বরা উপস্থিত ছিলেন।