দ্য পিপল ডেস্কঃ  বিশ্বকাপে দলের খারাপ পারফরমেন্সের দায়ে মাথায় নিয়েই মুখ্য নির্বাচকের পদ থেকে ইস্তফা দিলেন ইনজামাম উল হক। বুধবার পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের তরফে এমনটাই জানানো হয়।

  লাহোরে অনুষ্ঠিত হওয়া প্রেস কনফারেন্সে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সিলেকশন কমিটি থেকে জানানো হয়, আগামী ৩১ জুলাই মুখ্য নির্বাচকের পদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ইনজামাম উল হকের। এরপরে তাঁর মেয়াদ বাড়ানো হবে না।      

তিন বছরের অধিক সময় ধরে মুখ্য নির্বাচকের দায়িত্ব পালন করেছেন ইনজামাম উল হক। বিশ্বকাপে হারের পর মুখ্য নির্বাচকের চুক্তি পুনর্নবীকরণ না করার সিদ্ধান্ত প্রাক্তন পাকিস্তান অধিনায়কের।

ইনজামাম উল হক জানান, আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকেই শুরু হচ্ছে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। পরের বছর রয়েছে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখেই সরে গেছেন। তাঁর পরিবর্তে পিসিবি-র তরফে নতুন মুখ্য নির্বাচক নিযুক্ত করা হবে । যিনি নতুনভাবে এবং ফ্রেশ থিঙ্কিং নিয়ে দলকে তৈরি করবেন।

 তিনি আরও বলেন, গত সোমবার পিসিবি চেয়ারম্যান এহসান মানি ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর ওয়াসিম খানকে তাঁর পদত্যাগের কথা জানিয়ে ছিলেন। পাশাপাশি গত তিনবছর তাঁর প্রতিটি পদক্ষেপে সঙ্গ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদও জানিয়েছেন ইনজামাম।

চলতি বিশ্বকাপে রবিন রাউন্ডে গ্রুপ থেকে ছিটকে যায় পাকিস্তান। দলের এই খারাপ পারফরমেন্সের জন্য দায়ী করা হচ্ছে টিম সিলেক্টরকে। সঠিকভাবে খেলোয়াড় নির্বাচন না হওয়ায় মুখ থুবড়ে পড়েছে পাক ক্রিকেট দল।

 ২০১৬ মাঝ সময়ে পাকিস্তান দলের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন ইনজামাম। তাঁর অধীনে ওয়াসিম হায়েদের, তাওসিফ আহমেদ এবং ওজাতুল্লাহ ওয়াসতি-দের কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ।

 বিশ্বকাপের আগে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অধিনায়ক সরফরজ খান সহ ৫ জন খেলোয়াড়দেরকে সমালোচনাও করেছিলেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ক।  

 ২০১৭ মে মাসে ইউনিস খান ও মিসবাহ উল হকের অবসরের পর তরুন ক্রিকেটাররা দলের দায়িত্বভার সামলেছেন। তার সঙ্গে বেড়েছে অভিজ্ঞতা ও দলের মর্যাদা।

 কোচ আর্থার ও অধিনায়ক সরফরাজ খানের বহুদিন ধরে একসঙ্গে ভালো দল গড়ার ক্ষেত্রে লড়াই করছে। বর্তমানে খারাপ সময়ের মধ্যে গেলেও ভবিষ্যতে ভালো সময় ফিরবে তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here