দ্য পিপল ডেস্কঃ ২ দিনের মাথায় খোঁজ মিলল চন্দ্রপৃষ্ঠে হারিয়ে যাওয়া বিক্রমের। ইসরোর বিজ্ঞানীদের মুখে ফুটেছে হাসি। কিন্তু ঠিক ততটাই চিন্তায় তাঁরা। কারণ বিক্রমের উপর নির্ভর করছে প্রজ্ঞানের ভাগ্যও।

বিক্রমের জীবিত থাকার সময়সীমা পৃথিবী থেকেই নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল। চাঁদের এক অংশে ১৪ দিন সূর্যের আলো থাকে। অন্যদিকে তথন অন্ধকার।

চাঁদের যে অংশে বিক্রমের ল্যান্ড করার কথা ছিল সেই অংশে যত দিন সূর্যের আলো থাকবে ততদিন জীবিত থাকার কথা ছিল বিক্রমের।

সেই মতো বিক্রমের কাজ করার কথা ছিল ১৪ দিন। এর পর বিক্রমের ল্যান্ডারের আর সক্রিয় থাকার কথা নয়।

শুক্রবার রাতে হারিয়ে যায়ার পর রবিবার বিক্রমের হদিশ মিললেও কোথায় এবং কী অবস্থায় বিক্রম আছে তা জানা যায়নি।

অর্থাৎ, বিক্রমের সময় ক্রমশ কমছে। সেই সঙ্গে প্রশ্নের মুখে পড়ছে প্রজ্ঞান-এর ভবিষ্যত।

১৪ দিন সময়ের মধ্যে কেটে গেছে প্রায় ২ দিন। বাকি ১২ দিন সময়ের মধ্যে বিক্রমের অবস্থান নির্দিষ্ট করে, তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে তার মধ্যে থেকে প্রজ্ঞানকে চাঁদের বুকে নামিয়ে আনতে হবে বিজ্ঞানীদের।

পৃথিবীর সঙ্গে সংযোগকারী বিক্রমের অ্যান্টেনা সহ যাবতীয় যন্ত্রপাতি ঠিক থাকলে তবেই সে বার্তা পাঠাতে পারবে ইসরোর বিজ্ঞানীদের। আর এই দুশ্চিন্তাই কাজ করছে বিজ্ঞানীদের মধ্যে। বিক্রম কেন সাড়া দিচ্ছে না? সব ঠিক আছে তো?  

তবে আশার আলো জাগাচ্ছে অরবিটর ও তার সঙ্গে থাকা শক্তিশালী ক্যামেরা। অরবিটরের মাধ্যমেই বিক্রমের সঠিক অবস্থান জানতে খোঁজ শুরু করেছেন বিজ্ঞানীরা।     

বিক্রম-এর সঠিক অবস্থান জানতে না পারায় যা বিজ্ঞানীদের কাছে ক্রমশ কঠিন চ্যালেঞ্জের হয়ে দাঁড়াচ্ছে। তবে হাল ছাড়েননি বিজ্ঞানীরা। তৎপরতার সঙ্গে খুঁজছেন কোথায় বিক্রম। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here