ফের সেনা-জঙ্গি লড়াই, নিকেশ ৩

0
65

দ্য পিপল ডেস্কঃ ফের সেনা-জঙ্গির লড়াই। খতম ৩ জঙ্গি। শহিদ হয়েছেন এক সেনা জওয়ানও। কাশ্মীরের দালিপোরায় এলাকা ঘিরে রেখেছে সেনা। আর কোনও জঙ্গি লুকিয়ে রয়েছে কিনা, তা জানতে শুরু হয়েছে চিরুনি তল্লাশি।

চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি সিআরপিএফের কনভয়ে হামলা চালায় জইশ-ই-মহম্মদের এক আত্মঘাতী সদস্য। শহিদ হন অন্তত ৪০ জন জওয়ান। তার পর থেকে আরও কয়েকবার পুলওয়ামায় লুকিয়ে থাকা জঙ্গিদের নিকেশ করেছে সেনা।

পুলওয়ামারই ডালিপোরায় কয়েকজন জঙ্গি আত্মগোপন করে রয়েছে বলে খবর পায় সেনা। গভীর রাতে ঘিরে ফেলা হয় জঙ্গি ডেরা। সেনার উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে জঙ্গিরা। জবাব দেয় সেনাও। তার আগে অবশ্য জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ করার সুযোগ দেয় সেনা। যদিও তারা তাতে কর্ণপাত করেনি। গুলিযুদ্ধে শহিদ হন এক জওয়ান। সেনার গুলিতে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় দুই জঙ্গির। এরই কিছুক্ষণ পরে খতম করা হয় আরও এক জঙ্গিকে।

পুলওয়ামাকাণ্ডের পর ঘরে-বাইরে সমালোচনার মুখে পড়ে ইমরান খানের সরকার। জইশ-ই-মহম্মদের চাঁই মাসুদ আজাহারকে আশ্রয় দেওয়ায়ও কঠোরভাবে সমালোচিত হয় পাক সরকার। তার পরেও টনক নড়েনি। এদিকে মাসুদকে আন্তর্জাতিক জঙ্গির তকমা দিতে উঠেপড়ে লাগে ভারত। ভারতের পাশে দাঁড়ায় ফ্রান্স, ব্রিটেন এবং আমেরিকা। রাষ্ট্রপুঞ্জে বিষয়টি উঠলে ভেটো প্রয়োগ করে চিন। বন্ধু দেশ চিনকে পেয়ে কিছুটা জোর পায় পাকিস্তান। যদিও তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি।

কিছুদিন আগে শ্রীলঙ্কায় জঙ্গি হামলায় মারা যান অন্তত সাড়ে তিনশোজন। জখমও হন প্রচুর মানুষ। মৃতদের মধ্যে প্রচুর পর্যটকও ছিলেন। ওই ঘটনায়ও নাম জড়ায় এক জঙ্গি সংগঠনের। এর পরেই সন্ত্রাসবাদের ভয়ঙ্কর পরিণতি সম্পর্কে সচেতন হয় চিন। তার পর রাতারাতি ভেটো তুলে নেয়। মাসুদকে আন্তর্জাতিক জঙ্গির তকমা দেয় রাষ্ট্রপুঞ্জ।

মাসুদকে আন্তর্জাতিক জঙ্গির তকমা দেওয়া হলেও পরিস্থিতির বিশেষ হেরফের হয়নি বলে সংবাদ সংস্থা সূত্রের খবর। জইশ-ই-মহম্মদ বাদেও অন্য একটি জঙ্গি সংগঠন সে বেনামে চালাচ্ছে বলেও জল্পনা।

ওয়াকিবহাল মহলের ধারণা, কাশ্মীরে বারবার জঙ্গি পাঠিয়ে পরিস্থিতি অশান্ত করে রাখতে চাইছে মাসুদ। যদিও ভারতীয় সেনার কড়া নজরদারিতে মাসুদের সে চেষ্টা বাস্তবায়িত হবে না বলেই দাবি সেনার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here