যোগী রাজ্যে সাংবাদিককে মেরে মুখে মূত্রত্যাগ

0
42

দ্য পিপল ডেস্কঃ যোগী রাজ্যে ফের নিগ্রহের শিকার সাংবাদিক। সাংবাদিককে বেধড়ক মারধর করে গায়ে মূত্রত্যাগ করে তাঁকে লক আপে রেখে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে জিআরপি-র বিরুদ্ধে । মঙ্গলবারের পর ফের বুধবার সাংবাদিককে পেটানোর ঘটনায় প্রশ্নের মুখে উত্তরপ্রদেশের পুলিশ তথা যোগী প্রশাসন।

ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, জনৈক এক সাংবাদিককে বেধড়ক মারধর করা হচ্ছে । বারবার মারের কারণ জিজ্ঞাসা করে যাচ্ছেন ওই ব্যক্তি ।  

পরে একটি সর্বভারতীয় চ্যানেলকে ওই সাংবাদিক জানিয়েছেন, ওরা সবাই সাধারণ পোশাকে ছিল, আমার ক্যামেরায় আঘাত করে এবং ফেলে দেয়। ক্যামেরা তুলতে গেলেই ওরা মারতে শুরু করে। মুখে মূত্রত্যাগ করা হয়।   

গতকাল মঙ্গলবার উত্তরপ্রদেশের ধীমানপুরে একটি মালট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে যায়। সেই খবর করতে গিয়েছিলেন জনৈক ওই সাংবাদিক।

মারধর করে সাংবাদিককে লক আপে আটকে রাখার আর একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কেন তাঁকে আটকে রাখা হয়েছে প্রশ্ন করে যাচ্ছেন সাংবাদিক । সামনে বসে আছেন এসএইচও রাকেশ কুমার।

সাংবাদিকের অভিযোগ, রেল পুলিশের এসএইচও রাকেশ কুমারের নেতৃত্বেই সাধারণ পোশাক পড়ে থাকা জিআরপি পুলিশ তাঁকে মারেন । জিআরপি-র পক্ষ থেকে দাবি, ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ায় রেলের বিরুদ্ধে কথা বলছিলেন ওই সাংবাদিক, রেলের বিরুদ্ধে খবর করছিলেন বলেই তাঁকে আক্রমণ করে জিআরপি ।

তবে, উত্তরপ্রদেশ রাজ্য পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আমরা একটা ভিডিও পেয়েছি যেখানে একজন সাংবাদিককে লক আপে আটকে রাখা হয়েছে দেখা যাচ্ছে। এর পর উত্তরপ্রদেশের ডিজিপি ওপি সিং রেল পুলিশের এসএইচও রাকেশ কুমার ও কনস্টেবল সঞ্জয় পাওয়ারকে সাসপেন্ড করার নির্দেশ দিয়েছেন।

মাত্র দুইদিন আগে প্রশান্ত কানোজিয়া নামে এক সাংবাদিককে আটক করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে অবমাননা করে ভিডিও পোস্ট করার অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে। গতকালই তাঁকে বাক স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে এই দাবি করে ওই সাংবাদিককে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

পরপর এমন ঘটনায় প্রশ্নের মুখে পড়েছে যোগী প্রশাসন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here