সত্যিই কেমন ‘হাওয়াবদল’ করে চলে গেলেন নবনীতা দেবসেন

দ্য পিপল ডেস্কঃ শেষের দিন এলে কি বোঝা যায়? বুঝতে পেরেছিলেন কি নবনীতা দেবসেন? না হলে তিনি কেন বলবেন, ‘আশা করি বইটা দেখে যাতে পারব’।

৩ নভেম্বর রবিবারও প্রকাশিত হয়েছে তাঁর লেখা, ‘হাওয়াবদল’। আর তার চারদিনের মধ্যে তিনি আর নেই। সত্যিই কেমন হাওয়াবদল করেই চলে গেলেন নবনীতা দেবসেন ।

ক্যানসার ধরা পড়ায় যেমন তাঁর যন্ত্রণা ছিল তেমনই নতুন লেখা প্রকাশের আনন্দে মন উড়ছিল। তিনি নিজে লিখেছেন সেকথা, ‘মেঘ ছেঁড়া আলো এসে পড়ে জীবনে’।

আরও পড়ুনঃ প্রয়াত সাহিত্যিক নবনীতা দেবসেনের প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

ভালো-বাসার তেতলার ঘরে ক্যানসারের হাওয়ায় ভাসতে ভাসতেও তিনি পাঠককুলকে সুখবরটা দিয়ে গেছেন। জানিয়েছেন, তাঁর ‘একগুচ্ছ বই বেরচ্ছে খুব শিগগির’।

ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে চলে গেলেন নবনীতা দেবসেন ।যদিও তাঁর সতেজ মন পড়ে থাকত লেখালিখির প্রতি। একলা ঘরে বসে হয়ত সেই সব সৃষ্টির কথাই ভাবতেন।

শেষের দিকে হয়ত এমনই হয়, নিজেকে আরও গভীর ভাবে খোঁজার চেষ্টা করা হয়, ভুলগুলো দ্রুত শুধরে ফেলার চেষ্টা। তাই হয়ত করতে চেয়েছিলেন নবনীতা দেবসেন।

লিখলেন, ‘আমার অনেকদিন ধরে না বেরনো চন্দ্রাবতীর অনুবাদ প্রায় ২০ বছর ধরে পড়েছিল, আমার দীর্ঘসূত্রিতার কারণে। সেই বই এতদিন পর বেরচ্ছে..’।

খুশি তো ছিলই, বোধহয় ছিল দুশ্চিন্তাও। জীবন সময় দেবে তো..

জীবন সময় দেয়নি। তবে তিনি তো থাকবেন পাঠকের মধ্যেই। বই প্রকাশে তাঁর যে উচ্ছ্বলতা তা প্রকাশ পাবে তাঁর গুণমুগ্ধ ভক্তদের মনে।

                           (ঋণঃ রোববার-হাওয়াবদল)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here