দ্য পিপল ডেস্কঃ হাতে আর মাত্র একটা দিন। সরকার গঠন করতে না পারলে নতুন নাটকীয় মোড় দেখা যাবে মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে। সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়েও এখনও সরকার গঠন করতে পারেনি বিজেপি শিবসেনা।

মান রক্ষা করতে বৃহস্পতিবার সকালেই দিল্লি থেকে মহারাষ্ট্র পাড়ি দিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিতীন গটকড়ি। মহারাষ্ট্রে আবারও দেবেন্দ্র ফড়নবীশের সরকার গঠন করবে, এ বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

সেইসঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানিয়ে দেন, সরকার গঠনের ক্ষেত্রে শিবসেনা এবং মোহন ভগবতের কোনও ভুমিকা নেই।

অন্যদিকে এদিন সকালেই শিবসেনার বিধায়কদের মুম্বইয়ের ব্যান্ডরার কুরলা কমপ্লেক্সের কাছে একটি পাঁচতারা হোটেলে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এদিন মাতশ্রী ভবনে শিবসেনা প্রধান উদ্ভব ঠাকরের সঙ্গে বৈঠকের পরেই তাঁদের ওই হোটেলে নিয়ে যাওয়া হবে।

গতকাল বিজেপি নেতা সুধীর এম জানিয়েছেন,  বিজেপি এবং সেনা জোটেই সরকার গঠন হবে মহারাষ্ট্রে। কিন্তু ফিফটি-ফিফটি সরকার গঠনে এখনও অটুট রয়েছে শিবসেনা।

পাশপাশি এদিনেই রাজ্যপাল ভগবত সিং কোশিয়ারির সঙ্গে সাক্ষাত করবেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশ। শুক্রবারের মধ্যে সরকার গঠন করতে না পারলে মহারাষ্ট্রে জারি হতে পারে রাষ্ট্রপতি শাসন।

সূত্রের খবর,  এরই মধ্যে ৫৬ জন শিবসেনা বিধায়কদের মধ্যে কিছুজন বিজেপিতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত জানিয়েছেন, নিজেদের অবস্থানেই অটুট রয়েছেন শিবসেনার বিধায়করা। কোনও দলই মহারাষ্ট্রকে ভাঙতে পারবে না সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

শিবসেনার বিধায়কদের ভয় দেখিয়ে কোনও লাভ হবে না- সাফ বার্তা সঞ্জয় রাউতের। তিনি আরও বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসবেন শিবসেনা নেতা।

কিছুদিন আগেই সংবাদ মাধ্যমেই ১৭০ জন বিধায়ক নিয়ে শিবসেনার সরকার গঠনের কথা জানিয়েছিলেন শিবসেনা নেতা। কিন্তু শিবসেনার সঙ্গে জোটের হাত মেলাতে রাজি নয় এনসিপি এবং কংগ্রেস। তাহলে এখন শিবসেনার পদক্ষেপ কি?

সময় রয়েছে শনিবার অবধি। সরকার গঠন করতে না পারলে রাষ্ট্রপতি শাসন ছাড়া উপায় নেই। বড়সড় রাজনৈতিক প্রশ্নের মুখে মারাঠা সাম্রাজ্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here