দ্য পিপল ডেস্কঃ দশ দিনের বেশী সময় হয়ে গেলেও এখনও মুক্তি পাননি জম্মু-স্কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতারা। এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি পাঠালেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী, পিডিপি প্রধান মেহবুবা মুফতির মেয়ে ইলতিজা জাভেদ। এদিন এক ভয়েস মেসেজে ইলতিজা জানিয়েছেন, গত ৫ই অগাস্ট তাঁর মাকে গ্রেফতার করার পর থেকেই তাঁকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। এমনকি সরিয়ে রাখা হয়েছে গণমাধ্যম থেকেও। সেই সঙ্গে চিঠিতে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

আমাদের WHATSAPP গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন: Whatsapp

চিঠির শুরতেই ইলতিজা জানিয়েছেন, বন্দি অবস্থায় থাকাকালীন আপনাকে চিঠির মাধ্যমে জম্মু-কাশ্মীরের অবস্থা জানানো ছাড়া আমার কাছে আর কোনও উপায় নেই। আশা রাখছি আমার এই গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়গের কারণে মামাকে কোনও শাস্তিও দেওয়া হবে না। তিনি আরও জানান, আতঙ্কের কালো মেঘ গোটা কাশ্মীরকে ঢেকে ফেলেছে। কাশ্মীরের সমস্ত মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা করছি।

চিঠিতে মেহবুবা মুফতির কথা উল্লেখ করে তিনি জানিয়েছেন, গত ৫ ই অগাস্ট জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে উপত্যকার কোনও রাজনৈতিক দলের মতামত ছাড়াই সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্র। এরপর অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে গ্রেফতার করা হয় আমার মা মেহবুবা মুফতিকেও।

এরপরেই ইলতিজা জানান, টানা দশ দিন ধরে কাশ্মীর জুড়ে জারি রয়েছে কার্ফু জারি রয়েছে। গোটা কাশ্মীর জুড়ে যোগাযোগ ব্যাবস্থা বন্ধ রাখা হয়েছে। যা নিয়ে আশংকা প্রকাশ করছেন কাশ্মীরের মানুষ। স্বাধীনতা দিবসের দিনে যেখানে গোটা দেশ খুশিতে মেতে রয়েছে সেখানে জন্তুর মত বন্দি রয়েছেন কাশ্মীরিরা। আপনি হয়তো ভালো করে জানবেন আমার বাড়িতেই বন্দি রয়েছি আমি। বাইরের কোনও লোক এলে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না। বাড়ির দরজা থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। পাশপাশি কোনও গণমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়ও আমার সামনে নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন রাখা হচ্ছে। এমনকি আমাকে ভয় অবধি দেখনো হচ্ছে।  

এদিন চিঠিতে মা মেহবুবা মুফতির নিরাপত্তার কথাও উল্লেখ করেন ইলতিজা। পাশপাশি যে সমস্ত রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁদের নিরাপত্তা কথাও চিঠিতে তুলে ধরেন মেহবুবা কন্যা। তিনি আরও বলেন, “আমি বুঝতে পারছি না কাশ্মীর নিয়ে যারা মুখ খুলছেন তাদেরকে কেন শাস্তি দেওয়া হচ্ছে? আমাদের যে অত্যাচার সহ্য করতে হচ্ছে তা তুলে ধরা কি কোনও অপরাধ?”

“কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি দমবন্ধ করে তুলছে। আর কতদিন বন্দি অবস্থায় থাকতে হবে?” স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন ইলতিজা। তিনি আরও বলেন, “বৃহত্তর গণতান্ত্রিক দেশ ভারতবর্ষ। সেখানে কি মানুষ নিজের গণতান্ত্রিক অধিকার ব্যবহার করতে পারবে না?”  

সবশেষে মেহবুবা কন্যা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানান, মাফ করবেন আপনাকে এই চিঠি পোস্টালের মাধ্যমে পাঠাতে পারলাম কারণ জম্মু কাশ্মীরে এই পরিষেবা বন্ধ।

উল্লেখ্য, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর থেকেই পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন বিরোধী পক্ষ। শ্রীনগর বিমান বন্দর থেকে ফিরিয়ে দেওয়া হয় কংগ্রেস নেতা গুলাম নবী আজাদ ও সিপিআই(এম) সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরিকে। যদিও কাশ্মীরের ইতিবাচক ছবি তুলে ধরছে কেন্দ্রীয় সরকার। সব মিলিয়ে উপত্যকার ভবিষ্যৎ কি? তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।