দ্য পিপল ডেস্কঃ অল্প দু’টুকরো কাপড় । তাতেই বাজিমাত । পুরুষকে কুপোকাত করতে ব্রা এবং প্যান্টির জুড়ি নেই । মেয়েদের এই দুই অন্তর্বাসের প্রেমে পড়েননি এমন পুরুষ গোটা বিশ্বেই বিরল । কৈশোরে লুকিয়ে-চুরিয়ে এই দুই পোশাক নিয়ে নাড়াচাড়াও করেন সিংহভাগ কিশোর ।

এহেন ব্রা-প্যান্টি যে পুরুষের বুকে ঝড় তুলবে, তা বলাই বাহুল্য । তোলেও । তাই সভ্যতার শুরু থেকে আজ পর্যন্ত ব্রা নিয়ে যত গবেষণা হয়েছে, অন্য কোনও পোশাক নিয়ে এত গবেষণা হয়েছে কিনা সন্দেহ ! প্যান্টির কনসেপ্ট এদেশে নতুন । তবে এই কদিনেই পোশাকটি মন জয় করে নিয়েছে নারী, পুরুষ সবারই ।

গবেষকরা দেখেছেন, শৌখিন ব্রা-প্যান্টি যৌনখিদে বাড়ায় পুরুষের ।ধরে নেওয়া যাক, কোনও একজন পুরুষের যৌন চাহিদা দশ । শৌখিন ব্রা-প্যান্টি তাঁর এই চাহিদাটাই বাড়িয়ে দেবে বেশ কয়েকগুণ । তাই রাতে বিছানায় যাওয়ার আগে পরে নিন সুদৃশ্য অন্তর্বাস জোড়া । দেখবেন, বিছানায় আপনার সঙ্গীর চোখে আপনি হয়ে উঠেছেন রঙিন । কামনা মদির চোখে আপনাকে সারাক্ষণ দেখে চলেছেন আপনার কাঙ্খিত পুরুষটি । যা আপনি চান মনে প্রাণে।  

গবেষকরা দেখেছেন, গোলাপি রংয়ের ব্রা-প্যান্টি ছেলেদের আকর্ষণ করে বেশি। তার পরেই রয়েছে আকাশি রং। এর পরেই রয়েছে সি-গ্রিন। তার পর হলুদ। যে লাল যৌনতার প্রতীক, সেই লাল এবং কালো রয়েছে পুরুষদের পছন্দের তালিকার একেবারে শেষের দিকে।

নৈশলীলায় সাদা রংয়ের ব্রা-প্যান্টি নজর কাড়ে না পুরুষদের।সাদা রং শান্তির প্রতীক। তার পরেও লালের মতোই এটিও সিংহভাগ পুরুষের চোখে ব্রাত্য।অন্তত রতিক্রীড়ার সময়। গবেষকদের মতে, ভালো ডিজাইন করা ব্রা-প্যান্টি পরেই বিছানায় যাওয়া উচিত মহিলাদের। এতে সঙ্গীর চোখে চিরকাল হয়ে থাকবেন মোহময়ী।

চিকিতসকদের মতে, ব্রা কিংবা প্যান্টি সব সময় দামি পরা উচিত। যেহেতু এই দুটি পোশাকের সঙ্গে সবচেয়ে সংবেদনশীল অঙ্গগুলোর সরাসরি সম্পর্ক থাকে, তাই পোশাকের মানের সঙ্গে আপোশ করা উচিত নয়।

তবে সারারাত ধরে ব্রা-প্যান্টি পরে থাকা উচিত নয় বলেই মত চিকিতসকদের। এতে গোপনাঙ্গগুলোয় হাওয়া-বাতাস লাগতে পারে না।তাই মিলন মধুর করে তুলতে ব্রা-প্যান্টি পরা প্রয়োজন ঠিকই, তবে সঙ্গমপর্ব শেষে তা খুলে ফেলাই উচিত। এতে একদিকে যেমন যৌনমিলন সুখের হয়, তেমনি খোলামেলা শরীরে ঘুমও ভালো হয়।

রতিক্রীড়ার পর যা খুবই প্রয়োজন । সঙ্গমের সময় সুখের সপ্তম স্বর্গে উঠে গিয়েছিলেন আপনি । এবার নেমে আসার পালা । এই সময় শরীর খোলামেলা থাকলে আপনি দ্রুতই ফিরতে পারবেন স্বাভাবিক ছন্দে ।