দ্য পিপল ডেক্সঃ যৌনাঙ্গে লোমের প্রয়োজন কী? এ প্রশ্ন কেউ করতেই পারেন। তবে মনে রাখবেন, শরীরে যার প্রয়োজন ফুরিয়েছে, তা নিষ্ক্রিয় অঙ্গ হয়েই রয়ে গিয়েছে । যাঁরা ঈশ্বরবাদী, তাঁরা বিশ্বাস করেন ভগবান যা করেন মঙ্গলের জন্য। আপনি নিরিশ্বরবাদী হলেও, প্রাকৃতিক একটা শক্তির কথা আপনাকে স্বীকার করতেই হবে !

যৌনাঙ্গ সুরক্ষিত রাখতেই প্রকৃতি সৃষ্টি করেছেন যৌন লোমের। অথচ এই লোমই শেভ করে ফেলেন অত্যাধুনিকারা । এতে মন্দ বই ভালো হচ্ছে কি !

যৌনাঙ্গের মতো সংবেদনশীল জায়গায় সেভ করা কতটা স্বাস্থ্যসম্মত, তা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন। গবেষকদের একাংশের মতে, যৌনাঙ্গ শেভ করলে কমে যেতে পারে যৌন চাহিদা। মনে রাখতে হবে, রতিক্রিয়া চলাকালীন সময়ে সঙ্গী বা সঙ্গিনীর মুখ দেখে যে সুখ হয়, যৌনাঙ্গ দেখে তার চেয়েও অনেক বেশি সুখ হয়। এবার সেই যৌনাঙ্গ যদি লোমশ না হয়, তবে সুখ আসবে কোথা থেকে ? 

যেসব পুরুষের বুক রোমশ, মহিলাদের কাছে তাঁদের আকর্ষণ রোমহীন পুরুষের চেয়ে অনেক বেশি। বুক রোমশ নয়, অথচ পুরুষটি দেখতে সুন্দর, তাঁর দিকে ঝোঁকেন খুব কম মহিলাই। গবেষকরা দেখেছেন, গোটা বিশ্বেই রোমশ বুকের পুরুষের কদর রয়েছে।

পুরুষের রোমশ বুকে মুখ লুকিয়ে সুখ খুঁজে বেড়ান সব মহিলাই।

যৌনসঙ্গমের পরে পুরুষের লোমশ বুকে মাথা গুঁজেই যৌন উত্তেজনা প্রশমিত করেন সিংহভাগ মহিলাই।  

এ তো গেল রোমশ বুকের কথা। এবার আসা যাক লোমশ যৌনাঙ্গের কথায়। গবেষকরা দেখেছেন, লোমশ যৌনাঙ্গের কদরও গোটা পৃথিবীতেই বেশি। স্যালাড যেমন খিদেটা বাড়িয়ে দেয় অনেকখানি, তেমনি যৌন লোমও যৌন খিদে বাড়িয়ে দেয় প্রায় চারগুণ বেশি।

গবেষকদের একাংশের মতে, শিশুদের দেখে সেই কারণেই কামোত্তেজনা হয় না।তবে শিশুদের ওপর যারা যৌন নির্যাতন চালায়, তারা বিকৃতকাম। সমাজের এই অংশটুকু বাদ দিলে সবাই খুঁজে বেড়ান লোমশ যৌনাঙ্গই।

গবেষকদের কারও কারও মতে, যৌনাঙ্গ শেভ করলে তার সৌন্দর্যটাই হারিয়ে যায়। বিশেষত মহিলাদের। সব পুরুষই চান, তাঁর সঙ্গিনীর যৌনাঙ্গটি হোক লোমশ। তাতে নিশিখেলার সময় তাঁর কামোত্তেজনা এক লপ্তে বেড়ে যাবে অনেকখানি। গবেষকরা এও দেখেছেন, লোমশ যৌনাঙ্গের মহিলারা যৌনজীবনে বেশি সুখী হন।

যাঁরা শেভ করেন কিংবা যৌনাঙ্গ লোমশ নয় কৈশোরকাল থেকেই, যৌনজীবনে তাঁরা খুব একটা সুখী হন না। সুখী করতেও পারেন না প্রিয়জনটিকে। তাই যৌনাঙ্গ শেভ না করাই ভালো। তবে এটি সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা প্রয়োজন। মনে রাখতে হবে, একটি সুন্দর লোমশ যৌনাঙ্গই কিন্তু পুরুষের বুকে কামবহ্নি জ্বালিয়ে দেয় মুহূর্তের মধ্যে। রতিক্রিয়ার সময় যে দাবানলে পুড়ে মরতে চান সব মহিলাই।