দ্য পিপল ডেস্কঃ এ রাজ্যের দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির ঘাটতি যথেষ্ট, অথচ দেশের একাধিক রাজ্যের প্রবল বৃষ্টির ভ্রুকূটি বন্যা পরিস্থিতি তৈরি করেছে। সব থেকে ভয়াবহ আকার নিয়েছে বিহার, অসম ও ত্রিপুরায়।

বিহারে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা

আমাদের WHATSAPP গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন: Whatsapp

বিহারে বন্যায় ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার এসডিআরএফ ও এনডিআরএফ-এর ২৬ টি দল গঠন করেছেন। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বন্যা পরিস্থিতিতে প্রায় ১ লক্ষ ২৫ হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ১৯৯ টি ক্যাম্প খোলা হয়েছে।

ত্রিপুরায় জারি রেড অ্যালার্ট

ত্রিপুরায় প্রায় ১০ টি নদীর জলের স্তর বেড়েছে রেকর্ড হারে। বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে জল। জারি করা হয়েছে লাল সতর্কতা। কয়েক হাজার বাড়ি জলের তলায়। উদ্ধারকারী দলের সাহায্যে সাধারণ মানুষদের বিভিন্ন ক্যাম্পে রাখা হয়েছে। সরকারি উদ্যোগে শুকনো খাবার, জল, ওষুধ সহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সরবরাহ করা হচ্ছে।

ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি অসমে

অন্যদিকে, অসমের বন্যা পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ঙ্কর হচ্ছে। মৃতের সংখ্যা ১৭ । বন্যায় ঘরছাড়া প্রায় ৪৩ লক্ষ । অসমে বন্যা পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ আকার নিয়েছে যে জাতীয় সড়কের উপর প্রায় সাড়ে তিনফুট জল জমে আছে। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার একাধিক ব্যবস্থা নিয়েছে রাজ্য সরকার। মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়ালের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

জলের তলায় কাজিরাঙা অভয়ারণ্য

পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ হয়েছে যে কাজিরাঙা অভয়ারণ্য  থেকে প্রাণীরা বেরিয়ে আসছে । অভয়ারণ্যের প্রায় ৯০ শতাংশ জলের তলায় চলে গিয়েছে । মঙ্গলবার সকালে অসমের শোণিতপুর জেলার জামুগুরিহাট এলাকায় একটি হাতির দেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে, জঙ্গল থেকে বেরিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের দিকে যেতে পথ দুর্ঘটনায় মারা গেছে হাতিটি।

পাশাপাশি, বন্যপ্রাণীরাও যাতে দুর্ঘটনার শিকার না হয়, তার জন্যে বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে নাগাঁও জেলা প্রশাসন। অভয়ারণ্যের আশেপাশের রাস্তায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে হালকা যানবাহন চলাচল। গাড়ি ঘুরিয়ে দেওয়া হচ্ছে জাকহালাবন্ধ এবং বোকাকহাট থেকে। এছাড়াও রাস্তায় মোতায়েন রয়েছে প্রায় ১০০ জন অতিরিক্ত বনকর্মী ।

সেই সঙ্গে কড়া নজর রাখা হচ্ছে গোটা এলাকার উপর, যাতে চোরা শিকারীরা এই সুযোগে বন্য প্রাণীদের ক্ষতি করতে না পারে। শনিবার থেকে মৃত্যু হয়েছে ২৩টি বন্য প্রাণীর।