পাকিস্তানে বিস্ফোরণ, হাত আইএসআইয়ের!

0
99
পাকিস্তানে বিস্ফোরণ, হাত আইএসআইয়ের!

দ্য পিপল ডেস্কঃ ফের পাকিস্তানে বিস্ফোরণ । বিস্ফোরণ ঘটেছে লাহোরের সুফি দরগায় । মৃত্যু হয়েছে অন্তত ছ জনের। জখম হয়েছেন প্রচুর মানুষ।ঘটনার নিন্দা করেছে পাক সরকার। জঙ্গিদের খোঁজে শুরু হয়েছে তল্লাশি।

লাহোরের প্রাণকেন্দ্রে রয়েছে দাতা দরবার। সুফি সম্প্রদায়ের প্রার্থনাস্থল এটি। এদিন সকালেও দরবারে ভিড় করেছিলেন ধর্মপ্রাণ সুফি সম্প্রদায়ের মানুষ।

সেই সময় জঙ্গিরা পাঞ্জাব পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে হামলা চালায়। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ছয় পুলিশ কর্মী। জখম হন বহু।

তাঁদের মধ্যে পনের জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের ভর্তি করা হয়েছে স্থানীয় হাসপাতালে।

পাকিস্তানে মুসলিমদের অনেকগুলি সম্প্রদায় রয়েছে।শিয়া, সুন্নি, সুফি, হাজারা, আহমদিয়া। এই সব সম্প্রদায়ের মধ্যে বৈরিতাও সুবিদিত।

এর আগে পাকিস্তানে বিস্ফোরণ

২০১০ সালেও একটি প্রার্থনাস্থলে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল জঙ্গিরা।

সেবারও মৃত্যু হয়েছিল বেশ কয়েকজন ধর্মপ্রাণ মানুষের। এবার ফের একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটায় আতঙ্কিত স্থানীয়রা।

পাকিস্তানে সুন্নি সম্প্রদায়ই সংখ্যাগুরু। এই সম্প্রদায়ের জঙ্গিরা হাজারা ও সুফিদের মুসলমান বলে মেনে নেয় না।

হিন্দু, শিখ সহ অন্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা চালানোর পাশাপাশি এই জঙ্গিরা সুফি ও হাজারাদের ওপরও হামলা চালায়। এদের মদত দেয় আইএসআই। ইমরান সরকারের মাথাব্যথার কারণ এরাই।

বিস্ফোরণের পর ঘিরে ফেলা হয়েছে অকুস্থল। জঙ্গিদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে সেনা ও পুলিশের যৌথবাহিনী।

২০১৭ সালেও সিন্ধ প্রদেশের বিখ্যাত লাল শাহবাজ কলন্দর নামের একটি সুফি দরগায় আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা।

প্রাণ যায় অন্তত ৮০জনের। জঙ্গিদের খোঁজে অভিযান চালায় সেনা। নিকেশ করা হয় শখানেক জঙ্গিকে। তার পরেও অবশ্য জঙ্গি হামলায় রাশ টানা যায়নি।

ভারতে অশান্তি জিইয়ে রাখতে প্রথম থেকেই জঙ্গিদের মদত দিয়ে চলেছে পাক সেনাবাহিনী।

জইশ-ই-মহম্মদ, লস্কর-ই-তৈইবার মতো কুখ্যাত জঙ্গি সংগঠনকেও মদত জোগায় পাক সরকার।

এই সংগঠনগুলিকে আর্থিক সাহায্যও সে দেশের সরকার করে বলে অভিযোগ।

পাক সরকারের মদতপুষ্ট জঙ্গিরা মাস তিনেক আগেই হামলা চালায় কাশ্মীরের পুলওয়ামায়। তার পরেই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালায় ভারত। তার পরেও জঙ্গি কাজকর্মে ইতি টানা যায়নি।

সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায়ও হামলা চালায় জঙ্গিরা। প্রাণ হারান অন্তত সাড়ে তিনশোজন।

তাঁদের মধ্যে প্রচুর পর্যটকও ছিলেন।

তদন্তে নেমে গোয়েন্দারা জানতে পারেন, বিস্ফোরণের নেপথ্যে রয়েছে আইএসআই।

বুধবার পাকিস্তানে বিস্ফোরণ -এর পিছনেও এই সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের হাত রয়েছে বলে অনুমান পাক গোয়েন্দাদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here