The people tv digital desk: লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, দাবানলের মতো দেশজুড়ে ছড়াচ্ছে সংক্রমণ। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফ থেকে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ৭ মাসে সর্বাধিক হয়েছে দৈনিক সংক্রমণ। সেইসঙ্গে এক ধাক্কায় মৃত্যু সংখ্যাও বেড়েছে ।

জানা গিয়েছে, বিগত ২৪ ঘণ্টায় ২ লক্ষ ৬৮ হাজার ৮৩৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা কিনা গতকালের থেকে ৪ হাজার ৬৩১ জনের বেশি বেড়েছে। একদিনে ১ লক্ষ ২২ হাজার ৬৮৪ জন করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন । এক ধাক্কায় বেড়েছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা। দেশে বর্তমানে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১৪ লক্ষ ১৭ হাজার ৮২০ জন।

দেশে সুস্থতার হার ১৬.৬৬ শতাংশ। কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান বলছে, এখনও পর্যন্ত দেশে ৩ কোটি ৪৯ লক্ষ ৪৭ হাজার ৩৯০ জন করোনা থেকে মুক্ত হয়েছেন। এদিকে করোনার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে ওমিক্রনে আক্রান্তের সংখ্যাও। জানা গিয়েছে, বর্তমানে দেশে ওমিক্রনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ০৪১ জন।

সংক্রমণ ঠেকাতে একাধিক কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্য সরকারগুলি। একাধিক রাজ্য নাইট কারফিউ-এর পথে হেঁটেছে। কলকাতা পুরসভা এলাকায় কন্টেনমেন্ট জ়োনের সংখ্যা ২৯ থেকে বাড়িয়ে ৪৪ করা হল। ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ শুক্রবার জানান, অতীতের তালিকা সংশোধন করে বেশ কিছু নতুন ঠিকানা কন্টেনমেন্ট জ়োনের আওতায় আনা হয়েছে।

৩ নম্বর বরোতে ৪ টি, ৪ নম্বর বরো ৪ টি, ৭ নম্বর বরো ৪ টি, ৯ নম্বর বরো ২ টি, ১০ নম্বর বরো ১০ টি, ১২ নম্বর বরো ১১ টি, ১৪ নম্বর বরো ৩ টি, ১৬ নম্বর বরো ৫ টি, ৮ নম্বর বরো ১ টি। কলকাতায় মোট কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা হল ৪৪। যদিও কোনওভাবেই ঠেকানো যাচ্ছে না সংক্রমণ। সবথেকে খারাপ পরিস্থিতি মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লি তামিলনাড়ু ও কর্ণাটকে। মহারাষ্ট্র, দিল্লির মতে বাংলার করোনা সংক্রমণও এবার ভাবাচ্ছে কেন্দ্রকে।