দ্য পিপল ডেস্কঃ ১৯৬২ সালের ভারত-চিন যুদ্ধ এখনও অনেকের স্মৃতিতে টাটকা। ২০২০ এসে কি ফের সেই যুদ্ধবিধ্বস্ত দিনে ফিরতে হবে? সেই আশঙ্কাই দানা বাঁধছে।

ফের উত্তপ্ত প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা। ভারত-চিন নিয়ন্ত্রণরেখায় ফের চিনের নজিরবিহীন আগ্রাসন। সোমবার ভারত ও চিনের সেনার মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

সূত্রের খবর, এইদিনের ভারত ও চিনের সেনার মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে প্রাণ গেল এক সেনা অফিসার ও দুই জওয়ানের।লাদাখের গলওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন দুই সেনাবাহিনীর পদস্থ কর্তারা।

পাশাপাশি নিয়ন্ত্রণরেখায় পৌঁছচ্ছে ৫০টি বোফোর্স ট্যাঙ্ক। ইতিমধ্যে বিদেশমন্ত্রী, সেনাবাহিনীর প্রধান ও চিফ অব ডিফেন্স স্টাফের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। দু’পক্ষের বৈঠকে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

সূত্রের খবর, ভারতের বিরুদ্ধে চিনের অভিযোগ- ভারতই প্রথম নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম করে। চিনের সেনাবাহিনীর ওপর হামলা চালায়।

চিনের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়াং দাবি করেছেন, সোমবার নাকি পর পর দুবার সীমান্ত পার করে চিনের দিকে ঢোকার চেষ্টা করে ভারতীয় সেনা। চিনের সেনাবাহিনীকে উত্তক্ত্য করা হয়েছে।

যদিও চিনের এই বক্তব্যে আমল দেয়নি দিল্লি।গত দেড়মাস ধরে সংঘাত চলছে ভারত-চিন সীমান্তে। একের পর এক বৈঠকেও কোনও সমাধান মেলেনি।

সপ্তাহখানেক আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারত-চিনের অশান্তির খবর ছড়িয়ে পড়ে। বলা হয়, ভারতের ৬০ কিমি দখল করেছে চিন।

সোমবারের অশান্তির পর উঠছে প্রশ্ন, সত্যি কি ভারতের ৬০ কিমি দখল করেছে চিন? সেই জায়গা উদ্ধার করতেই ভারত আক্রমণ চালিয়েছে?

পাশাপাশি করোনা আতঙ্ক তাড়া করছে বিশ্ববাসীকে। সবার ওপরে রয়েছে চিন। ভারতও বাদ পড়েনি সংক্রমণ থেকে। এই দুয়ের জেরে ফের যুদ্ধের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।