দ্য পিপল ডেস্কঃ মহারাজাদের পুজো তাই কোচবিহার রাজবাড়ির লক্ষ্মীদেবী মহালক্ষ্মী নামে পরিচিতা। মহারাজার আমল থেকেই কোচবিহারের ঐতিহ্যবাহী মদনমোহন বাড়িতে পূজিতা হয়ে আসছেন মা মহালক্ষ্মী।

এবারেও পুজোর প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে। এই মহালক্ষী মূর্তিটি একটু ভিন্ন। মদনমোহন মন্দিরের মহালক্ষ্মীর বিশেষ বৈশিষ্ট্য দেবীর চারটি হাত। দেবীর দুই হাতে পদ্ম, একহাতে কমণ্ডলু এবং অন্যহাত দিয়ে তিনি আশীর্বাদ করছেন।

এখানে মহালক্ষ্মীর সঙ্গে বাহন রূপে প্যাঁচা থাকে না। থাকে চারটি হাতি। হাতিদের গায়ের রঙ সাদা। দেবী মহালক্ষ্মীর সঙ্গে এখানে ইন্দ্রদেবের পুজো হয়।

আরও একটি বিশেষ বৈশিষ্ট হল এই মহালক্ষ্মীর পুজোতে বলি প্রথা রয়েছে। পাঁঠা ও এক জোড়া পায়রা বলি দেওয়া হয়ে থাকে। বলি হওয়া মাংস মায়ের ভোগ হিসেবে নিবেদন করা হয়।

রাজবাড়ির দেবীকে অত্যন্ত জাগ্রত বলে মনে করেন স্থানীয়রা। প্রাচীনকালে পুজো হতো রাজ্যের শ্রীবৃদ্ধি কামনা করে। রাজ আমলের রীতি মেনে আজও দেবী মহালক্ষ্মীর পুজো হয়।

আজও তাই মায়ের কাছে স্থানীয়রা অনেকেই মানত করেন। পুজোর দিন মায়ের আশীর্বাদ পেতে এখনও মন্দির প্রাঙ্গনে ভিড় জমান বহু ভক্ত। কোচবিহারের মহারাজাদের এই মহালক্ষ্মীর পুজোর পরম্পরা আজও চলমান রেখেছে কোচবিহারের দেবোত্তর ট্রাস্টি বোর্ড। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here