দ্য পিপল ডেস্কঃ গো পাচারকে কেন্দ্র করে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত জুড়ে জারি লাল সর্তকতা। ফের মালদা জেলার বৈষ্ণবনগর থানার শোভাপুর ও মুর্শিদাবাদ জেলার নিমতিতা মধ্যবর্তী এলাকায় গঙ্গা নদীর মাধ্যমে বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে গরু পাচারের চেষ্টা। ঘটনায় আটক করা হয়েছে চার বাংলাদেশিকে। বিএসএফ সূত্রে খবর, গরু পাচারের উদ্দেশ্যে এরা ভারতে প্রবেশ করেছিল।

আমাদের WHATSAPP গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন: Whatsapp

প্রসঙ্গত, বুধবার রাতভর তল্লাশি চালিয়ে ভারত বাংলাদেশ সীমান্তের শোভাপুর থেকে প্রায় ২৬১ টি গরু উদ্ধার করে বিএসএফ। এই ঘটনায় আটক করা হয়েছে ৩ বাংলাদেশীকে। 

আরও পড়ুনঃ রাতভর তল্লাশি, উদ্ধার ২৫০ টিরও বেশী গরু

অন্যদিকে গাইঘাটার সীমান্তবর্তী এলাকায় নিরাপত্তা আরও আঁটোসাটো করতে সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও বনগাঁ পুলিশের একটি যৌথ বৈঠক হয় বৃহস্পতিবার আংরাইল সীমান্তে। এদিনের বৈঠকে উপস্থিতি ছিলেন বিএসএফের ডিআইজি, এডিজি বিএসএফ, বনগাঁর পুলিশ সুপার তরুণ হালদার সহ একাধিক উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা। বৈঠক শেষে তারা ইছামতীর পাশ বরাবর এলাকা ঘুরে দেখেন।

উল্লেখ্য ১১ জুলাই সীমান্তে পাহাড়া চলাকালীন ৬৪ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের কর্মী আনিসুর রহমান গো পাচারকারীদের ছোঁড়া গুলিতে গুরুতর আহত হন। অন্যদিকে, বিএসএফের গুলিতে আহত হয় এক পাচারকারীও। বি এসএফ সূত্রে খবর, ২৫ জনের একটি গরুপাচারকারী দল বাংলাদেশ থেকে বনগাঁ সীমান্তে ঢোকে। ১০-১৫টি গবাদিপশু তারা পাচার করার জন্য এসেছিল বলেই অভিযোগ বিএসএফের। এলাকায় এখনো জারি রয়েছে ১৪৪ ধারা। ধৃতদের খোঁজে জারি রয়েছে তল্লাশিও।