সোনার নদী 04

দ্য পিপল ডেস্ক- নদীর সঙ্গে মানব সভ্যতার অচ্ছেদ্য সম্পর্ক । মানবসভ্যতার অগ্রগতি নদীর উপর নির্ভরশীল ।

তবে জানেন কি বিশ্বে এমন কিছু নদী রয়েছে যেখান সোনা মেলে ! এর মধ্যে রয়েছে ভারতের বেশকিছু নদীও। 

আজকের গ্যালারিতে রইল তেমনই কিছু সোনার নদীর সন্ধান 

সোনার নদী রয়েছে ভারতেও

ঝাড়খণ্ডের সুবর্ণরেখা নদী: ভারতের প্রাচীন নদীর নামের মধ্যেই সোনা লুকিয়ে রয়েছে ।

এই নদী দিয়ে নাকি জলের সঙ্গে সোনাও বয়ে চলে । পুরাণে এমনটাই কথিত রয়েছে ।

সোনার নদী 01

সুবর্ণরেখার উৎপত্তি রাঁচীর পিসকা গ্রাম থেকে । শোনা যায়, এক সময় নাকি পিসকা গ্রামে সোনার খনি ছিল ।

সেই জন্যই নদীর নাম সুবর্ণরেখা । আর খনি থেকেই সোনা নদীতে মিশে যায় ।

বর্ষার পর সুবর্ণরেখায় জল কমে গেলে তীরে নাকি সোনার টুকরো পড়ে থাকে । আজও দেখা যায় স্থানীয় মানুষেরা সুবর্ণরেখার পাড়ে সোনা খুঁজছেন ।

খারকাই নদী: সুবর্ণরেখার উপনদী খারকাই । জামশেদপুরের আদিত্যপুরের উপর দিয়ে বয়ে গিয়েছে খারকাই নদী । দৈর্ঘ্য মাত্র ৩৭ কিলোমিটার ।

সোনার নদী 02

এখানেও নাকি সোনা পাওয়া যায় । সুবর্ণরেখা নদীর সঙ্গে যোগসূত্রের কারণে খারকাইয়ের জলেও সোনা ভেসে আসে ।

এখানেও স্থানীয় মানুষদের সোনার সন্ধান করতে দেখা যায় ।

সোনার নদী 03

স্থানীয়দের কথায়, সারা দিন খোঁজার পর চালের থেকেও ছোট আকারের সোনার টুকরো মেলে ।

ভারতের বাইরে সোনার নদী রয়েছে কোথায়

ক্লনডাইক নদী: কানাডার ডসন শহরের ইওকন নদীর উপনদীর নাম ক্লনডাইক । ওজিলভিয়ে পর্বত থেকে সৃষ্টি হয়েছে নদীটি । এর আশেপাশে সোনা খুঁজে পেতে পারেন আপনিও ।

 

১৮৯৬ সালে ১৬ অগস্ট নদীতে সোনার সন্ধান মেলে । মার্কিন খনিজ সন্ধানকারী জর্জ কারম্যাক প্রথম এর সন্ধান দেন ।

খবর ছড়িয়ে পড়াতেই  ১৮৯৬ সাল থেকে ১৮৯৯ সাল পর্যন্ত রীতিমতো গোল্ড রাশ হয় ডসন শহরের ক্লনডাইক নদীতে ।

লক্ষাধিক খনিজ সন্ধানকারী ক্লনডাইকের উদ্দেশে রওনা দেয় । জানা যায়, তাঁদের অনেকে সোনা উত্তোলন করে প্রচুর ধনী হয়ে গিয়েছিলেন । আবার অনেকে কিছুই খুঁজে পান নি ।

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দক্ষিণ-পূর্ব আলাক্সার চিলকুটের মধ্যে দিয়ে বরফে ঘেরা রাস্তা পাড়ি দিয়ে তাঁরা পৌঁছন ডসন শহরে ।

১৮৯৬ সালের আগে পর্যন্ত শহরের জনসংখ্যা ছিল ৫০০ ।

১৮৯৬ থেকে ১৮৯৯ সালের মধ্যে সেই সংখ্যাটা বেড়ে দাঁড়ায় ৩০ হাজার । অস্থায়ী বাড়ি বানিয়ে তাঁরা বসবাস করতে শুরু করেন এই দুর্গম শহরে ।

নদীতে খনন শুরু করেন অনেকে । সেখানে নদীর পাড়ে বরফ হয়ে যাওয়া বালি তুলে, বরফ গলিয়ে সোনা উদ্ধার করা হয় । এখানে সোনা উত্তোলনে কোনও আইনি বাধা নিষেধ নেই ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here