||গৌতম ভট্টাচার্য||

প্রাথমিক বিপর্যয় কাটিয়ে ফেলেছেন তৃণমূলের দার্জিলিং জেলা সভাপতি গৌতম দেব। নিজেকে প্রমাণ করতে আপাতত তিনি মনঃ সংযোগ করছেন পুরভোটে। সূত্রের খবর, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে শিলিগুড়ি পুরসভা নির্বাচনে গৌতম লড়বেন। এবং লড়বেন মেয়র পদের জন্যই।

সীমাহীন ঔদ্ধত্য এবং লাগাতার ব্যর্থতার কারণে সদ্যই জেলা সভাপতির পদ খুইয়েছেন গৌতম। তাঁর জায়গায় বসানো হয়েছে রঞ্জন সরকারকে। খবর শুনে গৌতম কিঞ্চিত ভেঙে পড়েছিলেন বলে তৃণমূল সূত্রের খবর। তবে সামলে নিয়েছেন নিজেকে।

এর পরেই পুরসভা নির্বাচনে লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন তিনি।বাড়ানোর চেষ্টা করছেন জনসংযোগও।

২০০৪ সালে গৌতমকেই দার্জিলিং জেলা সভাপতি পদে বসিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার পর থেকে এলাকায় সংগঠন গড়তে নিজেকে উজাড় করে দিয়েছিলেন বলে দলীয় সূত্রেরই খবর।

এলাকায় ভালো সংগঠনও গড়ে ফেলেন। রাজ্যে পালাবদলের পর গৌতমকে মন্ত্রী করেন দলনেত্রী। উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের জন্য তৈরি করেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতর। এই দফতরেরই মন্ত্রী করা হয় গৌতমকে।

শিলিগুড়ি পুরসভা নির্বাচনে মুখ থুবড়ে পড়ে তৃণমূল। আরও কয়েকটি নির্বাচনেও দলের ফল হয় খারাপ। এর পরেই গৌতমকে সরিয়ে দলের দায়িত্ব দেওয়া হয় রঞ্জনকে। পরে ফের গৌতমের হাতেই সঁপে দেওয়া হয় দলের ব্যাটন।

লোকসভা নির্বাচনে দার্জিলিংয়ে মুখ থুবড়ে পড়ে তৃণমূল।তাঁর বিরুদ্ধে ঔদ্ধত্য প্রদর্শনের অভিযোগ তোলেন দলীয় কর্মীদেরই একাংশ।জনগণের সঙ্গেও দূরত্ব তৈরি হয়ে যায়।

মা-মাটি-মানুষের দলের নেতা হয়ে যান ডুমুরের ফুল। এই অভিযোগও কানে যায় দলীয় নেতৃত্বের। তার পরেই গৌতমকে সরানোর পরিকল্পনা ছকে ফেলেন দলনেত্রী। সেই মতো সরানো হয় গৌতমকে। জেলা সভাপতি পদে ফের বসানো হয় রঞ্জনকে।

সূত্রের খবর, এর পরেই শিলিগুড়ি পুরসভা নির্বাচনে লড়ার সিদ্ধান্ত নেন গৌতম। শুরু করেন জনসংযোগও। নিজের ওয়ার্ড ১৭ নম্বর থেকেই লড়বেন তিনি। এই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর গৌতমের স্ত্রী শুক্লা।

তিনি ঠিকঠাক সময় দিতে পারেন না বলে অভিযোগ। সেই কারণেই স্ত্রীর জায়গায় এবার নিজেই লড়তে চলেছেন গৌতম। দলের জেলা পর্যবেক্ষক অরূপ বিশ্বাসের সঙ্গে গৌতমের এনিয়ে একপ্রস্ত কথাও হয়।

তার পরেই পুরসভা নির্বাচনে লড়ার ব্যাপারে মনস্থ করে নেন গৌতম। এক কথায়, শিলিগুড়ি পুরসভা নির্বাচনে গৌতম-অশোক লড়াই স্রেফ সময়ের অপেক্ষা। তবে শেষ হাসি হাসবেন কে, তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরও বেশ কয়েকটা মাস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here