দ্য পিপল ডেস্কঃ পুজোর মুখেও বাদ পড়ছে না বন্যার ভ্রুকূটি। কয়েকদিনের বর্ষণে ক্রমশ জল বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার আত্রেয়ী নদীতে।

বাড়িঘর ছাড়তে হবে কিনা তা নিয়ে আতঙ্ক বালুরঘাটের খিদিরপুর, আত্রেয়ী কলোনী, গীতাঞ্জলি সহ তুলনামূলক নিচু এলাকার বাসিন্দাদের ।

একটানা বৃষ্টিতে গত আড়াই মাস আগে আত্মীয়পরিজনদের নিয়ে ঘর ছেড়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে হয়েছিল অন্তত ১০০ টি পরিবারকে।

তবে এখনই আতঙ্ককের কারণ নেই বলে সংশ্লিষ্ট দফতর থেকে জানানো হয়েছে । এখনও বিপদ সীমার কাছেই যায়নি জল।

ফলে সতর্কতা জারি করা হয়নি। পরিস্থিতির উপর নজর রাখা হয়েছে । সবরকম ভাবে প্রস্তুতি রাখা হয়েছে বলে দাবি বল দফতরের।

জানা গেছে, তোর্ষা সহ উত্তরবঙ্গের পাহাড়ি নদীগুলোর সঙ্গে যোগ রয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার প্রধান নদী আত্রেয়ী, টাঙ্গন এবং পুনর্ভবার।

দিন তিনেক ধরে চলা অবিরাম বর্ষণে জেলার প্রধান নদী আত্রেয়ীর জল বাড়ছে।

এই বর্ষণে জল জমছে বালুরঘাট শহরের হাইস্কুল মাঠ, রথতলা, কলেজ মোড়, কুন্ডু কলোনী সহ বিভিন্ন এলাকায়।

এদিকে নদীর জল বিপদসীমার কাছে না পৌঁছলেও বালুরঘাটের বিভিন্ন এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে জুলাই মাসে বর্ষণের কথা মাথায় রেখেই ।

এই জেলায় বর্ষার মোট বৃষ্টিপাতের প্রায় ৮০ শতাংশ আগেই হয়ে গিয়েছে ।

বাকি বৃষ্টি কোনো আশঙ্কা নেই বলেই মনে করছে সেচ ও কৃষি দফতর ।

বালুরঘাটের বাসিন্দা কল্পনা কর্মকার, সুজিত সরকাররা জানান, হাল্কা মাঝারি বৃষ্টি চলছে ক্রমাগত ।

আরো কয়েকদিন চলবে বলে শোনা যাচ্ছে । একটানা এইভাবে বৃষ্টি হলে জল বাড়বে ।

এমনিতেই নদী ফুলেফেঁপে ছিল। তার উপর এই বৃষ্টিতে জল বেড়েছে । স্বাভাবিক ভাবেই তাদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

সন্তান ও পরিবার নিয়ে ফের দুশ্চিন্তা তাদের।

জেলা সেচ দফতরের কার্যনির্বাহী বাস্তুকার স্বপন বিশ্বাস বলেন, গত তিনদিনে মোট বৃষ্টি হয়েছে ১১২ মিলি মিটার । রবিবার ২৬.৮ এবং সোমবার ৬৭.৬ মিলি মিটার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here