দ্য পিপল ডেস্কঃ চলতি বছর বাংলাতে বিধানসভা নির্বাচন।

এই নির্বাচনকে ঘিরে প্রস্তুত হচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলো।

রাজনৈতিক দলের পাশাপাশি প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশনও।

ভোটের আগে চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশিত হতে চলেছে শুক্রবার ।

খসড়া ভোটার তালিকা আগেই প্রকাশ করা হয়েছিল। তারপর তালিকায় সংশোধন হয়।

নতুন নাম যোগ হয়েছে। কিছু নাম বাদ গিয়েছে। সেই সমস্ত কাজকর্ম চলেছে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

ভোটের আগে রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে দু’দিনের সফরে এসেছিলেন উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন।

এদিন পুলিশ প্রশাসনিক কর্তা সহ বিভিন্ন দপ্তরের সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন তিনি। আলোচনা হয়েছে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে।

পুলিশ কর্তাদের স্পষ্ট নির্দেশ দিয়ে তিনি জানিয়েছেন, ভোটের সময় যাতে কোনওরকম গোলমাল বা হিংসার ঘটনা না ঘটে, তার জন্য তৈরি থাকতে হবে পুলিশ বাহিনীকে।

যে বা যাঁরা গোলমাল বাধানোর চেষ্টা করবেন, তাঁদের বিরুদ্ধে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নিতে হবে।

এদিন স্বাস্থ্য দপ্তরের সচিবদের সঙ্গে বৈঠক করে রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান তিনি।

বৈঠকে ছিলেন আয়কর এবং শুল্ক দপ্তরের আধিকারিকরাও।

ভোটের সময় কালো টাকার লেনদেন আটকানোর ব্যাপারে কী কী পদক্ষেপ করা যেতে পারে, সেই সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।
মনে করা হচ্ছে, ৮০ বছরের বেশি বয়স যাঁদের, তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হতে পারে পোস্টাল ব্যালট। শুধু তাই নয়, করোনা পরিস্থিতিতে যাঁরা শারীরিকভাবে অক্ষম বা ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দান করতে পারবেন না, তাঁরাও এই সুবিধা পেতে পারেন।