হুঁশিয়ারি মতো শুল্কহীন রফতানির দরজা বন্ধ করল ট্রাম্প

0
79

দ্য পিপল ডেস্ক – কথা মতো ভারতের জিএসপিতে ইতি টানল ট্রাম্প প্রশাসন । অর্থাৎ ভারতের রপ্তানি ক্ষেত্রে জেনারেলাইজড সিস্টেম অব প্রেফারেন্সেস –এর সুবিধা প্রত্যাহারের পথে হাঁটলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ।

আসলে জিএসপির মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশগুলিকে বিনা শুল্কে কয়েকটি পণ্য তাদের বাজারে প্রবেশের সুযোগ দেয় ওয়াশিংটন । ৫জুন থেকে সেই সুবিধা পাবে না ভারত ।

জিএসপিতে না ট্রাম্পের

চলতি বছরের ৪ মার্চ জিএসপির সুবিধা প্রত্যাহারের কথা জানিয়েছিলেন ট্রাম্প । এমনকি ৬০ দিনের নোটিসও পাঠানো হয়েছিল ।

ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে আসন্ন বিপদের আশঙ্কার জেরে বিষয়টি পুনর্বিবেচনার আর্জি জানায় মার্কিন কংগ্রেসের একাধিক সদস্য ও দেশের শিল্প মহলের একাংশ ।

কিন্তু শুক্রবার এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, ‘‘আমেরিকার জন্যও তাদের বাজার সমান ভাবে খোলার ব্যাপারে ভারত আশ্বাস দেয়নি। সে কারণেই  ৫ জুন থেকে তাদের উপর থেকে সুবিধাপ্রাপ্ত উন্নয়নশীল দেশের তকমা প্রত্যাহার করা হচ্ছে।’’

জিএসপিতে না ট্রাম্পের, কি বলছে ওয়াকিবহল মহল

জিএসপি প্রত্যাহারের বিষয়ে ওয়াকিবহল মহলের মত ভিন্ন । তাদের মতে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বন্ধু আখ্যা দিলেও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে একদা দুঁদে ব্যবসায়ী ট্রাম্প এক ইঞ্চিও ছাড় দিতে নারাজ ।

সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতায় জিতে ক্ষমতায় ফিরেছে মোদি সরকার ।

২য় বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথগ্রহণ করেছেন নরেন্দ্র মোদি ।

এমনকি ২৩ জুন ফল ঘোষণার দিনই তড়িঘড়ি শুভেচ্ছা বার্তাও পাঠিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ।

তবে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বন্ধুত্বকে সরিয়ে রাখলেন তিনি । আমেরিকার বাণিজ্যের স্বার্থে বন্ধু রাষ্ট্রকেও যে রেয়াত করা হবে না ।

শুক্রবারের বিবৃতিতে তা সাফ জানিয়ে দিলেন । কথামতো জিএসপি প্রত্যাহারে সিলমোহর দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক জিএসপি কি?

  • জিএসপি- জেনারেলাইজড সিস্টেম অব প্রেফারেন্সেস
  • আমেরিকার মাটিতে কোনও দেশকে বাণিজ্যে বিশেষ সুবিধা দিতে ওয়াশিংটনের সবচেয়ে পুরনো ও বড় ব্যবস্থা
  • ১৯৭৪ সালে তৈরি মার্কিন বাণিজ্য আইন অনুযায়ী এটি পরিচালিত হয়
  • সত্তর দশকের মাঝামাঝি থেকে ভারত জিএসপি-র সুবিধা পেয়েছে
  • সত্তর দশকের মাঝামাঝি থেকে ভারত জিএসপি-র সুবিধা পেয়েছে

কাদের জন্য জিএসপি চালু হয়েছিল?

  • মূলত গরিব ও উন্নয়নশীল দেশগুলির কথা মাথায় রেখে
  • নিয়ম হল: কিছু শর্ত মানলে বস্ত্র, গাড়ির যন্ত্রাংশ-সহ প্রায় ২,০০০টি পণ্য বিনা শুল্কে আমেরিকায় রফতানি করতে পারে জিএসপি-প্রাপ্ত দেশ
  • লক্ষ্য, মার্কিন বাজারের সুবিধা নিয়ে অর্থনীতির উন্নতি করতে পারে ওই সমস্ত দেশ। পাশাপাশি, ওই সমস্ত পণ্য সস্তায় আমেরিকা এলে, তা দিয়ে ব্যবসা করতে পারবে বিভিন্ন মার্কিন সংস্থা । তৈরি হবে কাজের সুযোগও।

যদিও মার্কিন কংগ্রেসের বক্তব্য, জিএসপির সুবিধা না থাকায় আমেরিকায় রফতানিতে সমস্যায় পড়তে পারে দেশীয় সংস্থাগুলি ।

আরও পড়ুন

ঘটনায় মার্কিন মুলুকের এবং দেশের একাধিক ব্যবসায়িক সংগঠন এতে ক্ষোভ প্রকাশ করে ।

সেই ক্ষোভের আঁচ ট্রাম্প প্রশাসনের কর্ণকুহর পর্যন্ত পৌঁছতে পারেনি । যেহেতু উন্নয়নশীল দেশের বাজারে মার্কিন পণ্যের ক্ষেত্রে একই সুবিধা চালু হয় নি ।

তাই বছর ৫জুন থেকে উন্নয়নশীল দেশগুলি থেকে জিএসপি-র সুবিধা প্রত্যাহার করছে ওয়াশিংটন ।  

এমতাবস্থায় দেশকে আশ্বস্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর বিবৃতি দাবি করেছে তারা ।

ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রক শনিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, অর্থনৈতিক সম্পর্ক কখনও এক জায়গায় থেমে থাকে না। আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই এই ধরনের সমস্যার সমাধান করতে হবে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here