চিন ছেড়ে ভারতে আসছে ২০০ মার্কিন সংস্থা !

0
105

দ্য পিপল ডেস্কঃ কমিউনিস্ট শাসন পরিচালিত গণপ্রজাতান্ত্রিক চিনে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির জেরে অতিষ্ঠ প্রায় ২০০ মার্কিন সংস্থা । ফলে তড়িঘড়ি ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল মার্কিন সংস্থাগুলি ।

সূত্রের খবর, এই পণ্যদ্রব্য নির্মাতা কোম্পানিগুলি তাদের কারখানা ভারতে সরিয়ে নিয়ে যেতে চাইছেন। কমিউনিস্ট শাসন পরিচালিত চিনের তুলনায় ভারতীয় পরিবেশে স্বচ্ছন্দ বোধ করছেন মার্কিনীরা ।

২০০ মার্কিন সংস্থা 01

গণপ্রজাতন্ত্র চিন থেকে প্রায় ২০০ মার্কিন সংস্থা সরে আসছে

আপাতত সরকার গঠনের প্রক্রিয়া চলছে ভারতে। ভোট প্রক্রিয়া শেষ হলেই সংস্থাগুলি এই ব্যাপারটিতে নজর দেবে বলে জানিয়েছেন।

শীর্ষস্থানীয় আমেরিকান গোষ্ঠী ইউএস-ইন্ডিয়া স্ট্র‌্যাটেজিক অ্যান্ড পার্টনারশিপ ফোরাম এর তরফ থেকে এমনটাই জানা গিয়েছে।

২০০ মার্কিন সংস্থা 02

ভারতে লগ্নি সংক্রান্ত ব্যাপার নিয়ে ইতিমধ্যেই ইউএসআইএসপিএফ-এর সঙ্গে আলোচনা করছে মার্কিন সংস্থাগুলি। এমনটাই জানিয়েছেন ইউএসআইএসপিএফ-এর প্রেসিডেন্ট মুকেশ আঘি।

মার্কিন সংস্থাগুলির ভারতে আসার সুপারিশ

নতুন সরকার তৈরি হলে আর্থিক সংস্করণ এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ায় আরও বেশি স্বচ্ছতা আনার সুপারিশ করা হবে ।

Image Source: thewashingtonpost

গত এক-দেড় বছরে ই-কমার্স বা ডাটা লোকালাইজেশন ইত্যাদি ক্ষেত্রে যে ধরনের পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছিল।

তার সমীক্ষা অনুযায়ী মার্কিন সংস্থাগুলির ধারনা হয়েছে যে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির চেয়ে স্থানীয় সংস্থাগুলির স্বার্থে বেশি নজর দেওয়া হচ্ছে ।

কাজেই সংস্কার প্রক্রিয়ায় আরও গতি আনতে হবে।

আরও পড়ুন

সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা বাড়াতে হবে। কীভাবে মার্কিন সংস্থাগুলিকে আকৃষ্ট করা যায়। সেই ব্যাপারে নতুন নতুন উপায় ভাবাটাও দরকার।

জমি এবং শুল্ক সমস্যার দিকে লক্ষ্য দিতে হবে। বিশ্বব্যাপী সরবরাহ ক্ষেত্রে সামঞ্জস্য আনার ব্যপারে জোর দিতে হবে। এর ফলে লগ্নি আসবে ।

পাশাপাশি বাড়বে কর্মসংস্থানও। সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে একটি সাক্ষাৎকারে এমনই বিবৃতি দিয়েছেন মুকেশ আঘি।

তিনি জানান ভারতে ‘ম্যানুফ্যাকচারিং হাব’ তৈরি করার জন্য। ইতিমধ্যে সদস্য সংস্থার প্রতিনিধিদের নিয়ে ইউএসআইএসপিএফ একটি কমিটি তৈরি করা হয়েছে।

বহু সংস্থা চাইছে ভারতে কারখানা তৈরি করে সেখানে পণ্য বিক্রি করতে। কিন্তু ছোট ছোট সমস্যায় তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হচ্ছে না।

তাই আগে সে বিষয়ে নিশ্চয়তা চাইছে সংস্থাগুলি। সব ঠিক মতো এগোলে মার্কিন সংস্থাগুলি ভারতে পাঁচ হাজার কোটি ডলারের লগ্নি করতে পারে বলে মনে করছেন মুকেশ আঘি ।

ইউএসআইএসপিএফ-এর সদস্য সংস্থাগুলির সঙ্গে কাজ করছেন দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রাক্তন মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি মার্ক লিনস্কট।

লিনস্কট-এর মুকেশ আঘির আলচনায় জানা গেছে। কীভাবে ভারত রফতানি বাণিজ্য বাড়াতে পারে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট সুপারিশ করা হবে।

যেমন ভারত ও আমেরিকার মধ্যে অবাধ বাণিজ্য চুক্তি করার জন্য তাঁরা প্রস্তাব দেবেন বলে জানিয়েছেন। বিশেষত চিন থেকে সস্তার পণ্য নিয়ে ভারত চিরকালই উৎসাহী।

তবে এই চুক্তি হলে এই অবস্তার পরিবর্তন হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।এক্ষেত্রে চিনা পণ্যের ক্ষেত্রে বাধা তৈরি করতে হবে।

মার্কিন সংস্থাগুলি ভারতের বাজারের সুবিধা পাবে। ভারতীয় সংস্থাগুলিও আরও বেশি করে আমেরিকার বাজারে ঢুকতে পারবে।

তখন গরিব দেশকে দেওয়া আমেরিকার বাণিজ্যিক সুবিধা বা জেনারালাইজড সিস্টেম অফ প্রেফারেন্স নিয়ে আর কোনও বিতর্ক থাকবে না।

এমনটাই মনে করছেন ইউএসআইএসপিএফ-এর প্রেসিডেন্ট মুকেশ আঘি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here