বাঙালী কিউসিনের সেরা ঠিকানা 01

দ্য পিপল ডেস্ক: শুরু হয়ে গেছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। আর বাঙালির দুর্গাপুজো মানেই নতুন পোশাক পরে মন্ডপে মন্ডপে ঘুরে ঠাকুর দেখা। সেই সঙ্গে গল্প-আড্ডা। এর পাশাপাশি জমিয়ে ভুরিভোজ না করলে পুরো পুজোটাই মনে হয় বৃথা। তাই ঠাকুর দেখতে বেরিয়ে পেটের দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

তাই পুজোতে কোথায় খাবেন। কোন রেঁস্তোরায় পুজোর স্পেশাল কি খাবার পাবেন আসুন দেখে নেওয়া যাক।

১। ভজহরি মান্না-

‘ভজহরি মান্না আমি শ্রী শ্রী ভজহরি মান্না’। সত্তরের দশকের মান্না দে-র সেই জনপ্রিয় গানকে থিম করেই তৈরি হয়েছিল এই রেস্তোরাঁটি। এখন আর শুধু কলকাতায় আটকে না থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে এই রেস্তোরাঁটি। তাই পুজোতে ঠাকুর দেখতে বেরিয়ে একবার বাঙালী খানা খেতে আসতে পারেন ভজহরি মান্না থেকে।

মেনু– মুগের ডাল, মোচার ঘণ্ট, ডাব চিংড়ি, মটন ডাকবাংলো, গন্ধরাজ ভেটকি, আম ইলিশ, হিঙের লুচি, বাদশাহি ডাল।    

খরচ– ৭০০-৮০০ টাকা মাথাপিছু ধরে চলাই ভাল।

ঠিকানা– একডালিয়া রোড (হাজরা), সল্টলেক সেক্টর ১ এবং ৫, স্টার থিয়েটার (হাতিবাগান), রুবি (কসবা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এসটেট), এসপ্ল্যানেড, হিন্দুস্তান রোড

ফোন – ০৩৩ – ২৪৬৬ ৩৯৪১, ০৩৩-২৪৬৬ ৭৬৮৬

২। সপ্তপদী-

সপ্তপদী নাম শুনেই নিশ্চই প্রথমেই উত্তম সুচিত্রার নাম মনে পড়ে যায়। রেস্তোরাঁতে ঢোকার পরেও রিনা ব্রাউন আর কৃষ্ণেন্দুতেই মুড়ে থাকবেন আপনিও। আর সঙ্গে যদি থাকে সব বাঙালি খাবার তাহলে তো কোনও কথা হবে না।

 

মেনু- ডাব চিংড়ি, মুরগীর পাতুরী, ভাপা ইলিশ, ধনেপাতা মটন, চিতল মুইঠা, ভুনা চিংড়ি।

খরচ– ৭০০ টাকায় দুজনের ভালমতো খাওয়া হয়ে যাবে।

ঠিকানা-  জি ৪০ এ বাঘাযতীন, ৪৯, বি, পূর্ণ দাস রোড 

ফোন – ০৯৮৩১৬১১২১০, ০৯০০৭৯১২৪৩৩, ৮৪২০৭২২০৯৮ 

৩। কস্তুরি-

দেখতে যেমন চাকচিক্যে ভরা। তেমনই খাওয়া-দাওয়ার স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয় খাবার খেতে যেতে হবে কস্তুরিতে। এমন একটি রেস্তোরাঁ কস্তুরি, যেখানে বাঙালি খাবারের সেরা জায়গা বললেও ভুল বলা হবে না। ১৯৯৪ সালে তৈরি হওয়া রেস্তোরাঁয় কম খরচে শুধু পেট নয় মন ভরেও খেতে পারবেন।

মেনু- কচু ভাপা চিংড়ি, ভাপা ইলিশ, কচুর লতির চচ্চড়ি, পুরভরা দই পটল, মরিচ মাংস, কাজু বাদাম দিয়ে আলুরদম, রাধাবল্লভি।

খরচ- ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় দুজনের ভালমতো হয়ে যাবে।

ঠিকানা– ৭এ, মুস্তাক আহমেদ স্ট্রিট, নিউ মার্কেট এলাকা 

ফোন – ০৮৩৩৪৯২২২২১, ৯৭৪৮৯০৬০২৫

৪। কষে কষা- 

কষে কষা রেস্তোরাঁর খাবার এখনও একবারও খেয়ে দেখেননি। তাহলে পুজোতে একবার চেখে দেখতেই পারেন কষে কষা রেস্তোরাঁর খাবার। অন্দরসজ্জায় বেশ একটা আটপৌড়ে সাজে সজ্জিত হয়েছে। খাবারগুলি স্বাদের দিক থেকে একেবারে অতুলনীয়। খাবারের দামের কথা ভাবলে পকেটেও খুব একটা চাপ পড়বে না।

মেনু- আম ভেটকি, পুর দিয়ে বেগুন ভাজা, কদুলি পুষ্প ঘণ্ট, কম্বো মাংস, আম কাসুন্দি ইলিশ, পালং ছানার কোফতা। 

খরচ-৭০০ টাকায় দুজনের খাওয়া ভালো মতো হয়ে যাবে। 

ঠিকানা- রাজারহাট, গোলপার্ক, বিধান সরণী, পার্ক স্ট্রিট, গড়িয়া, সল্টলেক 

ফোন – ০৩৩ ৬৪৬০৬৪০১, ০৯৮৩০৯৪৯৪৯৪ 

৫। ৬ বালিগঞ্জ প্লেস-

আপনার একটু ও রান্না করতে ইচ্ছা করছে না আবার অন্য দিকে পকেটের কথাটাও ভাবছেন । অথচ অনেকেই চাইছেন ফুলকো লুচি, ছোলার ডাল আর ঝাল ঝাল করে করা আলুর দম। আবার কেউ বা চাইছেন কাচঁকি মাছের ঝাল দিয়ে গরম গরম সুগন্ধি সাদা চালের ভাত| নিশ্চিন্তে থাকুন| ফুল কোর্স মেনুর মতো, প্রথম পাতে শুক্তো থেকে শুরু করে, শেষ পাতে চাটনি এবং পায়েস এমনকি মিষ্টি দই পর্যন্ত যত্ন করে সাজিয়ে পরিবেশন করবে ৬ বালিগঞ্জ প্লেস।

মেনু- শুক্তো, লুচি, ছোলার ডাল আর ঝাল ঝাল করে করা আলুর দম, সর্ষে পোস্ত দিয়ে করা মশলাদার পাবদা মাছের ঝাল।

খরচ- ১০০০-১২০০ টাকা

ঠিকানা-সেক্টর ১ , সল্ট লেক 

৬।ওহ! ক্যালকাটা- 

পকেটে যদি একটু বেশি জোর থাকে তাহলে সোজা চলে আসুন ওহ!ক্যালকাটায়। এই রেস্তোরার অনেকগুলি শাখা সারা দেশ জুড়ে রয়েছে। এখানকার খাবারে বৈশিষ্ট্য হলো বাঙালির ঐতিহ্যগত খাবারগুলোকে নতুন ভাবে নতুন রূপে আপনার সামনে পরিবেশন করা।

মেনু-ভাপা ইলিশ এবং স্মোকড ভেটকি।

খরচ-মোটামুটি দু-জনের জন্য পড়বে ২০০০ টাকার মতো

ঠিকানা- ফোরাম মল, ১০/৩ এলগিন রড, লাল রাজপত রায় সারণি, কলকাতা এবং সিলভার আর্কেড, যে বি এস হালডেন এভিনিউ কলকাতা।

৭। আহেলী- পিয়ারলেস ইন-

আদর্শ বাঙালি খাবারের রেস্তোরাঁ যেখানে দেশি এবং বিদেশী সব ধরণের ভোজনবিলাসীরাই হাজির হয়। এখানকার বৈশিষ্ট্য হল, আগেকার দিনের ‘জমিদার বাড়ির রান্না’এবং যা পরিবেশন করা হয় পুরোপুরি বাঙালি পোশাকে।

মেনু- নারকেলের দুধে রান্না করা চিংড়ি মাছের মালাইকারি এবং রুই মাছের পাটিসাপ্টা।

খরচ-দু-জনের জন্য প্রায় ২০০০ টাকা।

ঠিকানা: ১২ জওহরলাল নেহেরু রোড, এসপ্ল্যানেড , কলকাতা

৮। বোহেমিয়ান-

স্বাদবদলের জন্য চলে আসুন বোহেমিয়ানে। এখানে পাবেন কনটেম্পোরারি বাঙ্গালী ফুসিং ফুড। দেশি খাবারের সাথে সঙ্গে বিদেশী খাবার ও চেখে দেখতে পারেন| এছাড়াও পাবেন বিভিন্ন রকমের নিরামিষ খাবারের সম্ভার।

মেনু: অবশ্যই খান রয়্যাল বেঙ্গল রোস্ট মটন ।

খরচ: দু-জনের জন্য প্রায় ১৮০০ টাকা।

ঠিকানা: ৩২/৪ ওল্ড বালিগঞ্জ ১স্ট লেন কলকাতা|

৯।লোকাহার –

বাঙালি খাবারের প্রতি অনুপ্রাণিত হয়ে এই রেস্তোরাঁটি গড়ে ওঠে ২০১৫ সালে সাউথ সিটি মল এর কাছে। রেস্তোরার মালিকেরা তাদের বাড়ির নিচের অংশ জুড়ে তৈরি করেছেন এই রেস্তোরাঁটি। এর আসন সংখ্যা খুব সীমিত, ২৫ জনের মতো। সাধ্যের মধ্যে লোভনীয় খাবারের সঙ্গে সঙ্গে গ্রাম্য জীবনের একটি পূর্ণ ছবি তুলে ধরা হয়েছে এই রেস্তোরায়। বিভিন্ন জেলা থেকে সংগ্রহ করা হাতের কাজের বিপুল সম্ভার ও পাবেন এখানে যা আপনি কিনতেও পারবেন।

মেনুঃ পোস্ত বড়া, মোচা চিংড়ি, ধোঁকার ডালনা, মাটন ডাক বাংলো, চন্দনা ক্ষীর|

খরচ: দু-জনের জন্য প্রায় ৪০০ টাকা|

ঠিকানা: প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড, ৫৩৩ যোধপুর পার্ক, কলকাতা।

এছাড়াও সাধ্যের মধ্যে স্বাদ বদল করতে চলে আসুন

ষোলোআনা বাঙালি ( প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড, ৫০০ টাকা প্রতি দুজনে),

পদ্মাপাড়ের রান্নাঘর (গড়িয়াহাট, ৫০০ টাকা প্রতি দুজনে),

ঠাকরুন (হিন্দুস্থান পার্ক, ৭০০ টাকা প্রতি দুজনে),

ভোজ কোম্পানি (নিউ মার্কেট অঞ্চল, ৬০০ টাকা প্রতি দুজনে)

সাড়ে চুয়াত্তর (সাদার্ন এভিনিউ , ৪৫০ টাকা প্রতি দুজনে)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here