Demonstrators gather at a protest during a curfew, two days after the nationwide anti-government protests turned violent, in Baghdad, Iraq October 3, 2019. REUTERS/Thaier Al-Sudani

দ্য পিপল ডেস্কঃ তিন দিন পরেও অশান্ত ইরাক। দক্ষিণ ইরাকের একাধিক জায়গায় জারি কার্ফু। তবুও বরফ গলেনি। বরং সরকার বিরোধী আন্দোলনের বলি প্রায় ৩৪ জন। আহত ১৫০০ জনের অধিক। সূত্রের খবর, মৃতদের মধ্যে ৩১ জন আন্দোলনকারী এবং বাকি ৩ নিরাপত্তা বিভাগের কর্মী।

এই প্রথমবার ইরাকের ক্রমাগত ভঙ্গুর মেহেদি সরকারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হল সাধারণ মানুষ। ইরাকের বেকারত্ব, সরকারি বিভাগের বেআইনি কার্যকলাপের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন হাজারো ইরাকবাসী।

আন্দোলনকারীদের দাবি পূরণ করতে বৃহস্পতিবার বৈঠক ডাকেন প্রধানমন্ত্রী আদিল আবদ মেহেদি। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর দফতরের তরফে জানানো হয়, আন্দোলনকারীদের দাবি মেনে ইরাকের নাগরিকদের সুরক্ষার জন্য যা করা দরকার সবটাই করতে রাজি।

ইতিমধ্যেই নাসিরিয়া, দিওয়ানিয়াহ এবং বাসরা সহ ইরাকের বিভিন্ন জায়গায় আন্দোলনে শামিল হয়েছেন নাগরিকরা। তবে সব থেকে বেশি আন্দোলনে শামিল হয়েছেন বাগদাদের মানুষ।

প্রধানমন্ত্রী মেহেদির বিরোধিতায় নেমেছেন ইরাকের যুদ্ধ সৈনিক লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবদুল ওয়াহাব আল সায়িদি। আন্দোলনকারীদের প্রকাশিত একাধিক ছবিতে দেখা গিয়েছে ইরাকের এই রিয়েল হিরোকে।

কিছুদিন আগেই ইরাকের সেনাবাহিনীর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া দেওয়া হয় আবদুল ওয়াহাব আল সায়িদিকে। সূত্রের খবর, ইরানের আনুগত্য মেনে চলার কারণেই সরিয়ে দেওয়া হয় তাঁকে। আন্দোলনের আঁচ গিয়ে পড়েছে রাষ্ট্রসংঘেও। রাষ্ট্রসংঘের তরফে বাগদাদ এবং একাধিক শহরে সরকার বিরোধী আন্দোলন থেকে সংযত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ইরাকের রাষ্ট্রসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি জেনিন হেন্নিস প্ল্যাস্কার্ট সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মৃতদের পরিবারের প্রতি সহানুভূতি জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে দেশের মধ্যে শান্তি বজায় রাখতে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণের কথা জানিয়েছেন।

পরিবর্তনের দাবিতে রথে নেমে শান্তিপূর্ণ মিছিলে সমবেত হচ্ছেন ইরাকের সাধারণ মানুষ। মিছিল আটকাতে সরকারের পক্ষ থেকে নামানো হচ্ছে বাহিনী।

সাধারণ মানুষ ও সরকারি বাহিনী উভয়কেই সংয়ত থাকার বার্তা দিয়েছেন ইরাকের রাষ্ট্রসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি জেনিন হেন্নিস প্ল্যাস্কার্ট। প্রত্যেক নাগরিকের নিজের মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

৩৪ জন নাগরিকের মৃত্যু, এক অন্ধকারের মধ্যে ইরাকের নাগরিক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here