দ্য পিপল ডেস্কঃ স্বাস্থ্য নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়, ফের রাজ্যের সমালোচনায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর।

রাজ্যে আয়ুষ্মান প্রকল্প চালু হচ্ছে না কেন? এই প্রশ্ন তুলে রাজ্য সরকারের সঙ্গে ফের বিবাদে জড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়।

রাজ্যপালের বক্তব্য, এরাজ্যে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য নিয়ে রাজনীতি হয়। যা একেবারেই উচিত নয়। সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য পরিষেবা রাজনীতির উর্ধ্বে রাখা উচিত বলে মন্তব্য রাজ্যপালের।

রাজ্যপাল বলেন, তাঁর কাছে গত ৩ মাসে প্রায় ৩ হাজার চিঠি এসেছে। যেসব চিঠিতে তাঁর কাছে সাধারণ মানুষ কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ্মান প্রকল্প চালু করার দাবি জানিয়েছেন।

এতেই ফের রাজ্য ও রাজ্যপালের সংঘাত আরও একবার প্রকাশ্যে এল।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে বাবুল সুপ্রিয়কে নিগ্রহকাণ্ডের পর থেকেই রাজ্যের সঙ্গে রাজ্যপালের দ্বন্দ্ব শুরু হয়।

কালীপুজোয় মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে রাজ্যপালের স্বস্ত্রীক নিমন্ত্রণ রক্ষা করতে যাওয়ায় সেই সংঘাতে কিছুটা প্রলেপ পড়ে। কিন্তু আসলে যে তা হয়নি তার প্রমাণ আরও একবার মিলল।

মঙ্গলবারই নেতাজি ইন্ডোরে শিক্ষক-অধ্যাপকদের বৈঠক থেকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, কে কি বলল কান দেবেন না, নিশ্চিন্তে কাজ করুন। কোথাও কোনো সমস্যা হলে আমায় বলুন।

এর প্রেক্ষিতে পাল্টা টুইট করে রাজ্যপাল লেখেন, মুখ্য়মন্ত্রী কি বললেন বোঝার চেষ্টা করছি। আমি সংবিধান মেনে রাজ্যপাল ও আচার্য হয়েছি এবং সেই দায়িত্ব পালন করে চলেছি।

তবে, এরাজ্যে আয়ুষ্মান প্রকল্প চালু নিয়ে এর আগে রাজ্য় সরকারের সমালোচনা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভোটের প্রচারে এসে মোদি জানিয়েছিলেন, আয়ুষ্মান প্রকল্প চালু না করে সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত করছে রাজ্য সরকার।

পাল্টা জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মন্তব্য করেন, রাজ্য ৪০ শতাংশ দিচ্ছে অথচ প্রচারে মুখ দেখাচ্ছেন মোদি।  

একদিকে রাজ্য সরকার অন্যদিকে রাজ্যপাল, তোপ, পাল্টা তোপে সরগরম বঙ্গ রাজনীতি।      

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here