দ্য পিপল ডেস্কঃ নেতাজির জন্মদিনে দেশজুড়ে আনুষ্ঠানিকতা, অথচ তাঁর মৃত্যুদিন আজও রহস্যে ঢাকা।

নেতাজির অন্তর্ধান সম্পর্কিত সব রহস্য লাল ডায়েরিতে লিপিবদ্ধ, বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন অল ইন্ডিয়া লিগাল এড ফোরামের সাধারণ সম্পাদক তথা সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী জয়দীপ মুখোপাধ্যায়।

শুক্রবার নেতাজির ১২৫ তম জন্ম বার্ষিকীর আগেই এক সাংবাদিক বৈঠকে বিস্ফোরক তথ্য তুলে জয়দীপ মুখোপাধ্যায় বলেন, স্টালিন পুত্রি সয়েটলানা তাঁর বাবার কাছ থেকে নেতাজি সম্পর্কিত সব তথ্য জেনে তা একটি লাল ডায়েরিতে সব লিপিবদ্ধ করে গেছেন। সেখানে নেতাজির রাশিয়ায় থাকাকালীন সব তথ্য লিপিবদ্ধ আছে। কিন্তু কংগ্রেস সরকার ভারতে সেই ডায়েরি প্রকাশ করতে দেয়নি। আমি চাই সেই ডায়েরি প্রকাশ করে অবিলম্বে নেতাজির সম্পর্কিত সব তথ্য প্রকাশ করা হোক।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ সোয়েটলানা যখন রাশিয়া থেকে পালিয়ে এসে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। সে সময়ে তিনি এক সাংবাদিক বৈঠক করে সব তথ্য উদঘাটন করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ততকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি তাঁকে বাধা দেন। এবং সোয়েটলানাকে ভারত ছাড়তে বাধ্য করেন।

পরবর্তীকালে সোয়েটলানা সেই লাল ডায়েরি লন্ডনে প্রকাশ করেন। জয়দীপ মুখোপাধ্যায়ের দাবি, সেই তথ্য প্রকাশ করা হোক। দেশবাসীর জানার অধিকার আছে নেতাজির শেষ পরিণতি সম্পর্কে জানার।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর অন্তর্ধান পরবর্তী সময়ের ওপর লেখা জয়দীপ মুখোপাধ্যায়ের ‘চেকা শেষ উত্তর’ বইটির পঞ্চম সংস্করণ প্রকাশিত হয়। অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন ব্রিগেডিয়ার দেবাশীষ দাস, অভিনেত্রী পাপিয়া অধিকারী, আইনজীবী সুরঞ্জন দাশগুপ্ত, আইনজীবী গোরাচাঁদ রায়চৌধুরী, বিশিষ্ট সমাজসেবী দীপ মজুমদার।

জয়দীপ মুখোপাধ্যায় আরও বলেন,  মনোজ মুখোপাধ্যায় কমিশনের রিপোর্টে প্রমাণ তাইহুকু বিমান দুর্ঘটনায় নেতাজি মারা যাননি। সহায় কমিশনের রিপোর্ট প্রমাণ করে গুমনামী বাবা নেতাজি নন।

তাই ভারত সরকারের উচিত অবিলম্বে রাশিয়া সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসে নেতাজি অন্তর্ধান রহস্য উন্মোচন করা। সুভাষচন্দ্র বসুর অন্তর্ধান রহস্য জানতে চায় ভারতবাসী।