দ্য পিপল ডেস্কঃ কালীপুজোয় ছুটিতে তাঁর বাড়ি আসার কথা ছিল, কিন্তি তা আর হল না। ছুটির আগেই কফিনবন্দী হয়ে ফিরবেন বাঙালি জওয়ান।

পাহাড়ি নদীর হড়কা বানে ভেসে মৃত্যু হল এক বাঙালি বিএসএফ জওয়ানের।

বানের জলে ভেসে পাকিস্তানে চলে যায় নদীয়ার বাসিন্দা সাব ইন্সপেক্টর পরিতোষ মন্ডলের দেহ।

মঙ্গলবার দুর্গাপুজোর দ্বিতীয়ার দিন জওয়ান পরিতোষ মন্ডলের মৃত্যু সংবাদ পৌঁছল তাঁর নদীয়ার বাড়িতে।

পরিতোষ মন্ডলের মৃত্যুর খবরে উৎসবের দিনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে তাঁর গ্রাম রুদ্রনগরে।

জানা গেছে, নদীয়ার পলাশিপাড়া থানার রুদ্রনগর গ্রামের বাসিন্দা পরিতোষ মন্ডল ১৯৮৫ সালে বিএসএফ-এ যোগদান করেন।

বিএসএফ-এর ৩৬ নম্বর ব্যাটালিয়নের জওয়ান পরিতোষ মন্ডলের পোস্টিং ছিল জম্মু-কাশ্মীরের আরনিয়া সেক্টরে।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার ফোন করে কালীপুজোয় ছুটি নিয়ে বাড়িতে আসার কথা জানিয়েছিলেন পরিতোষবাবু।

এরপর আর বাড়ির লোকেদের সঙ্গে কথা হয়নি। ফোনেও পাওয়া যাচ্ছিল না তাঁকে। অজানা আশঙ্কায় ভুগছিলেন পরিবারের লোকেরা।

গত শনিবার বিএসএফ- এর তরফে বাড়িতে ফোন করে জানানো হয়, পাহাড়ি নদীর হড়কা বানে ভেসে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে গেছেন পরিতোষ মন্ডল।

এরপর মঙ্গলবার ফের ফোন করে খবর দেওয়া হয় বানের জলে ভেসে পরিতোষবাবুর দেহ পাকিস্তানে চলে গেছে।

জানা গেছে, দুই দেশের মধ্যে ফ্ল্যাগ মারচিং করে পাকিস্তান থেকে দেহ উদ্ধার হয় পরিতোষ মন্ডলের।

পরিবার সূত্রে খবর, ২০২২ সালে অবসর নেওয়ার কথা ছিল পরিতোষবাবুর।

কিন্তু তার আগেই চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে স্বেচ্ছা অবসর নিয়ে বাড়ি চলে আসার কথা ভেবেছিলেন তিনি।  

তাঁর সেই ইচ্ছে পূরণ হল না। পরিতোষবাবুর মৃত্যুর খবর পৌঁছাতেই কান্নায় ভেঙে পড়ে গোটা পরিবার। ঘটনায় শোকের ছায়া গোটা রুদ্রনগর গ্রামে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here