দ্য পিপল ডেস্কঃ ৩ মাস লকডাউনের পর এখন দেশজুড়ে চলছে আনলক ১। তাও কমেনি করোনার প্রকোপ। উত্তর ২৪ পরগনার হাবড়ায় আবার পড়ল করোনার থাবা।


সূত্রের খবর, ধানবাদ থেকে হাবড়ায় আত্মীয়র বাড়িতে এসে, লকডাউনের জন্য হিজলপুকুরে আটকে পড়েন এক বৃদ্ধ। সর্দি-কাশি দেখা দিলে, তাঁকে প্রথমে হাবড়ায় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান আত্মীয়রা৷


সেখান থেকে কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে বৃদ্ধের লালারস পরীক্ষায় কোভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে। এর পরের দিনই মৃত্যু হয় বৃদ্ধর।


বৃদ্ধর মৃত্যুর পর হিজলপুকুর এলাকায় বাঁশের ব্যারিকেড করে দেওয়া হয়। পাশাপাশি প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই বাড়িতি স্যানিটাইজ করা হয়েছে।


অন্যদিকে, হাবড়া দেশবন্ধু পার্ক সংলগ্ন কালীমাতা রোডে এক অন্তঃস্বত্ত্বা গৃহবধূ কলকাতার রেলহাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থাতেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে তিনি মেডিক্যাল কলেজের কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।


এই ঘটনা সামনে আসতেই পুরসভা, দমকল ও পুলিশের উপস্থিতিতে ওই এলাকা স্যানিটাইজ করা হয়। সেই সঙ্গে প্রশাসন ওই এলাকাকে কোয়ারেন্টাইন জোন হিসাবে ঘোষণা করে।


হাবড়ার প্রাক্তন পুরপ্রধান নীলিমেশ দাস জানান, হাবড়াবাসী সজাগ ও সতর্ক থাকার পাশাপাশি প্রয়োজন ছাড়া বাজার বা বাইরে না বের হবেন না। এই দুই ঘটনায় আতঙ্কিত এলাকাবাসী।


এলাকায় গুজব ও আতঙ্ক যাতে না ছড়ায়, তার জন্য প্রশাসনের তরফে আমজনতাকে সচেতন বার্তা দেওয়া হচ্ছে।


যদিও, একশ্রেণির মানুষ এখনও সামাজিক দূরত্ব মানাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে, সর্বত্র মাস্ক ছাড়া হাবড়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে৷