দ্য পিপল ডেস্কঃ অন্ত্যোদয় ও অন্নযোজনাভুক্ত ছাড়া আর সব মানুষের জন্য বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরিষেবা বাতিল করেছে ত্রিপুরা সরকার। তা নিয়ে পথে নেমে প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর সেই দাবিকে সিলমোহর দিয়ে উপজাতি এলাকার ক্ষমতাসীন বামফ্রন্ট জানিয়ে দিল বিজেপি সরকারের নির্দেশ মানা হবে না। এই ইসুতে ত্রিপুরায় বাড়ছে বিজেপি ও বামেদের লড়াই।

২০২০ সালে ত্রিপুরার উপজাতি এলাকায় ভোট। ওই এলাকায় বর্তমানে ক্ষমতায় আছে বামেরা। ৩০ টি আসনের মধ্যে ২৩টি আসন আছে বামেদের দখলে।  

ওই এলাকা দখল করতে একদিকে যেমন মরিয়া চেষ্টা করছে বিজেপি, তেমনই নিজেদের দখলে রাখার চেষ্টা করছে বামেরা।

বাম পরিচালিত এডিসি-র মুখ্য কার্যনির্বাহী রাধাচরণ দেববর্মা জানিয়েছেন,  খরচ দিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য রাজ্য সরকারের নির্দেশ মানা হবে না।

অভিযোগ, সরকারি স্বাস্থ্য পরিষেবা ধংস করার চেষ্টা চালাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। উপজাতি এলাকার উন্নয়নে কোনও নজর দিচ্ছেন না। ফলে অনুন্নত ও আর্থিকভাবে দুর্বল উপজাতিদের জন্য নিখরচায় হাসপাতাল পরিষেবা তুলে নিয়ে মানুষ মারার নীতিতে বিশ্বাসী নয় বামফ্রন্ট।

শুধু উপজাতি এলাকায় নয়, সাধারণ মানুষের থেকে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরিষেবা তুলে নেওয়ায় ক্ষোভে ফুঁসছে ত্রিপুরার একাংশ। কোথাও কোথাও বিক্ষোভের পরিবেশও তৈরি হচ্ছে।

রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তকে প্রত্যাহার ও পুনরায় বিবেচনা করতে রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের কাছে চিঠি লিখেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার।

অন্যদিকে ত্রিপুরায় বিজেপির জোট শরিক IPFT-ও একাধিক বিষয় নিয়ে বিজেপি সরকারের বিরোধিতা করছে।

সব মিলিয়ে বেশ চাপে ত্রিপুরার বিপ্লব দেব সরকার । পাশাপাশি উপজাতি এলাকায় নিজেদের গড় ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ বামেদের কাছেও।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here