দ্য পিপল ডেস্কঃ ভয়াবহ অগ্নিকান্ড দমিয়ে দিতে পারেনি উদ্যমকে।

আগুনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে চলছে কোভিশিল্ড পাঠানোর কাজ।

পুনের সিরাম ইন্সটিটিউটে বৃহস্পতিবার বিরাট অগ্নিকাণ্ডের পর শুক্রবারই মায়ানমার, সিচেলিস ও মরিশাসে পাঠানো হল করোনার টিকা কোভিশিল্ড।

সূত্রের খবর, ১৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে শুরু হয়েছে টিকাকরণের কাজ।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্পষ্ট জানিয়েছিলেন, বিদেশেও পাঠানো হবে কোভিশিল্ড।

বুধবার ভুটান, মলদ্বীপ, বাংলাদেশ, নেপাল, মায়ানমার ও সিসিলিতে কোভিশিল্ড পাঠানো হয়েছে।

এরপরেই বৃহস্পতিবার পুনের সিরাম ইনস্টিটিউটে বিধ্বংসী আগুন।

এই বিধ্বংসী আগুনে মৃত্যু হয়েছে পাঁচ জনের। তবে জানা গিয়েছে করোনার ভ্যাকসিন কোভিশিল্ডের কোনও ক্ষতি হয়নি।

শুক্রবারই মুম্বই বিমানবন্দর থেকে মায়নামারে গিয়েছে ১৫ লক্ষ ডোজ, সিচেলিসে ৫০ হাজার ডোজ ও মরিশাসে ১ লক্ষ ডোজ পাঠানো হয়েছে।

বাণিজ্যিকভাবে করোনার টিকা নেবে ব্রাজিল ও মরোক্কো।

দুটি দেশই ২০ লক্ষ ডোজ কোভিশিল্ড নেবে।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই টিকা তৈরি হচ্ছে পুনের সিরাম ইন্সটিটিউটে।

বৃহস্পতিবারের আগুনে টিকা তৈরির ইউনিটের কোনও ক্ষতি হয়নি।