The doctor is injecting male patients.In the medical's hand have syringes.

দ্য পিপল ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে বাংলাদেশে করোনা টিকা কর্মসূচি শুরু হতে চলেছে ।

চলতি মাসের ১৬ তারিখ থেকে ভারতে শুরু হয়ে গিয়েছে করোনা ভ্যাকসিনের টিকাকরণ।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আগেই ঘোষণা করেছিলেন ভারতের বাইরেও যাবে এই টিকা।

সেই মতো বাংলাদেশ সহ আরও ৬ দেশে পাঠানো হয়েছে টিকা।

২০ লক্ষ ডোজ বৃহস্পতিবারই পৌঁছে গিয়েছে বাংলাদেশে।

করোনা ভ্যাকসিন পৌঁছলেও তড়িঘড়ি করে দেশে করোনার টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু করতে চাইছে না স্বাস্থ্য দফতর।

বরং সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে বেক্সিমকো ফার্মাসিটিউক্যালসের কেনা ভ্যাকসিন পৌঁছনোর পরেই টিকাদান কর্মসূচি শুরু করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের তরফে।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশজুড়ে করোনা ভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হতে পারে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন।

ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে আনুষ্ঠানিকভাবে টিকাদান কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক সূচনা হবে।

পাশাপাশি করোনা টিকা নিয়ে গুজবে কান না দেওয়ার অনুরোধও জানিয়েছেন তিনি বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ৩ কোটি করোনা ভ্যাকসিনের ডোজ কিনছে বাংলাদেশ।

তার মধ্যে প্রথম দফায় আগামী ২৫ জানুয়ারি ৫০ লক্ষ ডোজ দেশে পৌঁছনোর কথা।

করোনার টিকা তৈরি ও দেশবাসীর মধ্যে টিকাদানে সামিল ভারতের প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশও।