দ্য পিপল ডেস্ক- প্রবল ঝড়বৃষ্টি ধসের জেরে পূর্ব মায়ানমারের একটি গ্রামে ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে । শুক্রবার মোন রাজ্যের থায়ে পেয়ার কোন নামে একটি গ্রামে ধস নেমে ধ্বংস হয় ১৬টি বাড়ি ও একটি মঠ । ২২টি দেহ উদ্ধার করা হয়েছে । আহত ৪৭ ।

আমাদের WHATSAPP গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন: Whatsapp

বন্যার জেরে মায়ানমারের এক রাজ্যে প্রায় ৪০০০ ঘর জলমগ্ন হয়ে রয়েছে এবং ২৫ হাজারেরও বেশি মানুষ গৃহহীন অবস্থায় প্যাগোডা এবং মনাস্ট্রিতে আশ্রয় নিয়েছে । দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শণে গিয়েছেন সহ-রাষ্ট্রপতি হেনরি ভ্যান থিও । পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামানো হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা টিম ও সেনাবাহিনী ।

 প্রতিবছর বৃষ্টিপাতের জেরে সৃষ্ট ভূমিধসের ফলে মায়ানমার সহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলিকে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় ।

রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্ট অনুযায়ী, গত কয়েক সপ্তাহে বন্যায় গৃহহীন ৮৯ হাজার মানুষ । তাঁদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষ বাড়ি ফিরে এলেও ধসের কারণে নতুন করে বিপর্যয়ের মুখে পড়তে হচ্ছে ।

অন্যদিকে,ঘূর্ণিঝড় লেকিমার প্রভাবে পূর্ব চিনে ১৮ জনের মৃত্যু খবর জানিয়েছে সে দেশের জাতীয় টেলিভিশন । নিখোঁজ প্রায় ১৪ । ঝেজিয়াংয়ের ওয়েনলিং শহরের উপরে শনিবার ১৮৭ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে ঝড় আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় লেকিমা । আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ক্রমে শক্তি হারিয়ে ১৫ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে উত্তর দিকে সরে যাবে ।

সারা দেশে প্রায় দশ লক্ষ মানুষকে নিরাপদস্থানে সরিয়ে ফেলা হয়েছে । শুধু সাংহাইতে সরানো হয়েছে আড়াই লক্ষ মানুষকে ।ঝড়ে উপড়ে গিয়েছে অসংখ্য গাছ। লাইন ছিড়ে বহু জায়গায় বন্ধ বিদ্যুৎ সরবরাহ। বিপর্যয়ের জেরে গত তিন বছরে এই প্রথমবার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সাংহাই ডিজ়নিল্যান্ড ।

প্রতিকূল আবহাওয়ার জেরে ঝেজিয়াং প্রদেশেই বাতিল করা হয়েছে ৩০০টি বিমান । বন্ধ নৌকা ও ট্রেন পরিষেবা ।