দ্য পিপল ডেস্কঃ বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জেরে গ্রেফতার করা হয় মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি ও বিধায়ক সুব্রত সাহার ছেলে সপ্তর্ষি সাহাকে৷ ধৃত সপ্তর্ষি সাহা সহ তার বান্ধবী শ্রাবনী মুখার্জিকে বৃহস্পতিবার বহরমপুর জেলা জজ আদালতে তোলা হলে বিচারক আনন্দ শঙ্কর মুখার্জি তাদের চোদ্দ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

সপ্তর্ষি সাহার স্ত্রী অমৃতা সাহার অভিযোগ, দীর্ঘ ছ’মাস ধরে এক যুবতির সঙ্গে সম্পর্ক ছিল তাঁর৷ বুধবার সন্ধ্যায় বহরমপুরের একটি সরকারি গেস্ট হাউসে অমৃতা সাহা তাঁকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন বলে অভিযোগ৷ বিধায়কের বউমার অভিযোগ, স্বামী শারীরিক নির্যাতন চালাতেন৷ তা সহ্য করতে না পেরে মাস ছয়েক আগে এক বছরের ছেলেকে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে আসেন তিনি৷ স্বামীর যে অবৈধ সম্পর্ক ছিল তা তিনি জানতেন ৷ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বুধবার সন্ধ্যায় বহরমপুর স্টেশন লাগোয়া সরকারী গেস্ট হাউজ়ে হাজির হন৷ অমৃতা দেবীর অভিযোগ, অনেকবার দরজা ধাক্কা দেওয়ার পর দরজা খোলেন তাঁর স্বামী৷ অবৈধ ভাবে তাঁর স্বামী ও যুবতী গেষ্ট হাউস আছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি ।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বহরমপুর থানার পুলিশ৷ বিধায়কের ছেলে সপ্তর্ষি ও তার বান্ধবী শ্রাবনী মুখার্জিকে আটক করে পুলিশ৷ অমৃতা সাহা শারীরিক নির্যাতন ও বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ দায়ের করেন সপ্তর্ষি সাহার বিরুদ্ধে বহরমপুর থানায়। অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার সপ্তর্ষি সাহাকে ও তার বান্ধবীকে আদালতে পেশ করে এবং পুলিশ হেফাজতে নেওয়ার জন্য আবেদন জানায়।

সরকারী আইনজীবী জানান, সপ্তর্ষি সাহা ও শ্রাবনী মুখার্জী দুজন কে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয় বৃহস্পতিবার। ধৃতদের বিরুদ্ধে ৩০৭, ৪৯৮ এ, ৪৯৭ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। দুজনকে চোদ্দ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

অভিযুক্তদের আইনজীবী রুদ্রনীল ঘোষাল জানান, জামিনের জন্য আবেদন জানানো হয়েছিল কিন্তু তার জামিন নাকচ করে দেওয়া হয়। তার স্ত্রী প্ল্যানমাফিক এই অভিযোগ করেছেন যা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here