দ্য পিপল ডেস্কঃ বিদেশে চাকরি খুঁজছেন ? মোটা মাইনের চাকরি। এই ধরুন কানাডা, ইউরোপ, আমেরিকা। সেখানে চাকরি পেলে একেবারে কেল্লাফতে। তখন আপনাকে পায় কে। মাইনে হবে ডলারে কিংবা পাউন্ডে।পাবেন পাকর্স, বিশাল ফ্লাট, চাইলে মিলতে পারে বিদেশিনী বান্ধবীও।

আপনি কী ইমেলে কোনও চিঠি পেয়েছেন? আপনার চাকরি হচ্ছে লন্ডনের মারিয়ট হোটেলে।বেতন ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় লাখ সাতেক টাকা। টাকার অঙ্ক জেনে আপনি তো দিশেহারা।

আনন্দে তা থৈ তা থৈ নৃতও জুড়ে দিয়েছেন। উফ! সেই কবে থেকেই এমন স্বপ্ন দেখে যাচ্ছিলেন। আর এখন তো একেবারে হাতের মুঠোয় আকাশের চাঁদ।

একটু সাবধান! আপনি কোনও প্রতারকের পা্ল্লায় পড়েননি তো ? আপনি কী ওই এজেন্সির সঙ্গে আগে যোগাযোগ করেছিলেন। করেননি তো? আচ্ছা. আপনি কী লন্ডন কিংবা ওয়াশিংটন থেকে কোনও ফোন পেয়েছেন? পেয়েছেন?

আপনি যে ফোনটা পেয়েছেন, নিশ্চিত থাকুন সেটা আফ্রিকার নাইজিরিয়া থেকে প্রতারকেরা ফোন লন্ডন বা ওয়াশিংটন থেকে রিডায়রেক্ট করে আপনাকে ধাপ্পা দিচ্ছে। 

আপনি ভাবছেন সতি লন্ডন, ওয়াশিংটন থেকে চাকরির ফোন এসেছে। আসলে এটা কুখাত ৪১৯ চক্র। যারা আপনার মতো বিদেশে চাকরি করতে ইচ্ছুক, এমন মানুষদের বেছে বেছে টাগেট করে তারা।ই মেলে বিদেশে চাকরির টোপ দিয়ে আপনার রক্ত জল করে জমানো টাকা আত্মসাৎ করে থাকে।

প্রতারণার খপ্পরে পড়ে লক্ষ লক্ষ টাকা খুইয়ে চলেছেন আপনার মতো বিদেশে চাকরির ফাঁদে পা দেওয়া অনেক মানুষ।প্রতারকেরা নিঃশব্দে শিকার খুঁজে চলেছে। ফাঁদে ফেলতে পারলেই কাম ফতে।

এই বিপদ থেকে বাঁচতে কয়েকটি বিষয়ে সতর্ক থাকুন।শুধু নাইজিরিয়াই নয়, এদেশেও রয়েছে এমন প্রতারণাচক্র।তারাও বিশ্বাসযোগ ভাবে নিজেদের এমনভাবে উপস্থাপন করে, মনে হবে সতি আপনার বিদেশে চাকরি করে দেবে।  

এক. আপনি যোগাযোগ করেননি, অথচ আপনার মেলে হাজির বিদেশে চাকরির চিঠি।আপয়েন্টমেন্ট লেটারও পাঠানো হয়, যা দেখলে ঘুণাক্ষরেও মনে হবে না ওটা নকল।এগুলো এড়িয়ে চলুন।  

দুই. অনলাইনে ইন্টারভিউ মানেই প্রতারণা। বিদেশি সংস্থাগুলো এভাবে চাকরি দেয় না। তারা সরাসরি সাক্ষাতকার নেয় বা এদেশে প্রতিনিধি পাঠিয়ে ইন্টারভিউ নিয়ে চাকরি দেয়।

তিন. টাকা চাওয়া মানেই প্রতারণা। এজেন্সিরা টাকা চাইলেই বুঝবেন এটা প্রতারণা ছাড়া কিছু নয়।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here