দ্য পিপল ডেস্কঃ বিজেপি যুব মোর্চার সিইএসসি মিছিলকে ঘিরে ধুন্ধুমার। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতে আটকে দেওয়া হল বিজেপির মিছিল। জল কামানের মাধ্যমে আটকে দেওয়া হল বিজেপির কর্মী সমর্থকদের।

ব্যারিকেড ভেঙে পার করার চেষ্টা করছে বিজেপি নেতারা। টিয়ার গ্যাস প্রয়োগ করা হচ্ছে বিজেপি কর্মীদের ওপর। বিজেপির এই মিছিল ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা পুলিশের।

অন্যদিকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি। পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে আহত এক বিজেপি কর্মী।

বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তিতে প্রায় ৫০ জন কর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

গ্রেফতার করা হল বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়কে। একইসঙ্গে আটক করা হয়েছে বিজেপি রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসুকে।

বিজেপির এই মিছিলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। প্রভাব পড়ে যানবাহন চলাচলের উপরেও। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এলাকা খালি করে দেওয়া হয়েছে।

দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশী মাশুল দিতে হয় পশ্চিমবঙ্গের মানুষকে। পাশাপাশি দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশী বিদ্যুতের মাশুল দিতে হয় কলকাতা শহরকে। অবিলম্বে এই মাশুল কম করার দাবীতে রাজ্য বিজেপির যুব মোর্চার মিছিল।

এর আগেও একই দাবীতে সরব হয়েছিল বিজেপি। কিন্তু তাতে কোনও ফল মেলেনি। তাই আবারও একই দাবী নিয়ে রাজপথে নেমেছে বিজেপি যুব মোর্চা। এদিন ভিক্টোরিয়া হাউসে ডেপুটেশন জমা দেবেন বলে জানানো হয়েছে বিজেপি যুব মোর্চার তরফে।

বিজেপি সূত্রের খবর, ২০০২ সালে নতুন আইন অনুযায়ী সিইএসসির তরফে কোনও গ্লোবাল টেন্ডার ডাকা হয়না। বাম সরকারের পর তৃণমূল সরকারও এবিষয়ে কোনও ভ্রুক্ষেপ করেনি বলে অভিযোগ বিজেপি যুব মোর্চার। তাই যতদিন অবধি তাঁদের দাবী পূরণ হয় ততদিন এই আন্দোলন চলবে বলে দাবী বিজেপি নেতাদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here